খবরভাইরাল

মিরাক্যাল! এক সন্তানের জন্মের ৩৯ দিনের মাথায় ফের মা হলেন মহিলা

এপৃথিবীতে সত্যিই চমৎকার আর আশ্চর্য (Stunning) ঘটনার শেষ নেই। মাঝে মধ্যেই এমন কিছু আজব ঘটনার কথা কানে আসে যা শুনলে সত্যি চমকে যেতে হয়। কারণ সাধারণত এই ধরণের ঘটনা সত্যিই খুব বিরল। এই যেমন ধরুন একটি খবর ইদানিং সামনে আসছে যেটা শুনে অনেকেই ভ্রূ কুঁচকে ফেলবেন! যেমনটা জানা যাচ্ছে এক সন্তান জন্ম দেবার মাত্র ৩৯ দিনের মাথাতেই আবারো এক সন্তানের জন্ম দিলেন এক মহিলা। খবরটি শুনে অনেকেই অবাক হয়েছেন।

এ আবার কেমন করে সম্ভব! সন্তানের জন্ম দিতে যেখানে নয় মাস গর্ভ ধারণ করতে হয়, সেখানে কি করে সম্ভব এমন ঘটনা? অবাক অদ্ভুত এই ঘটনাটি ঘটেছে বাংলাদেশের ময়মনসিংহে। সেখানে রিতা আক্তার নামের এক মহিলা ৩৯ দিনের ব্যবধানে দুবার মা হয়েছেন। যেমনটা জানা যাচ্ছে রিতা আক্তার ও আমিনুল ইসলাম প্রায় চার বছর আগে  বিয়ে করেন। এরপর থেকে তারা বাংলাদেশের গাজীপুরের কাপাশিয়া উপজেলার বর্মী এলাকার নয়ানগর গ্রামে থাকেন।

তাদের বিয়ের যখন সাড়ে তিন বছর হলেও সন্তানের মুখ দেখেনি। এরপর স্থানীয় ডাক্তারের কাছে স্ত্রীর সঠিক চিকিৎসা ও দেখা শোনার জন্য যান তাঁরা। ডাক্তার শিলা সেনের পরামর্শে ও চিকিৎসায় গর্ভবতী হন রীতা। স্বাভাবিকভাবেই পরিবারে খুশির আমেজ আসে। স্ত্রী গর্ভবতী হওয়ায় পর পরীক্ষা করে দেখা যায় গর্ভে দুই সন্তান রয়েছে। সেই মত প্রসব যন্ত্রণা উঠলে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় ওই মহিলাকে। হাসপাতালে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন মহিলা।

জন্মের পর সদ্যজাত কন্যা সন্তানের ওজন ছিল মাত্র ১ কেজি ১০০ গ্রাম। কিন্তু মুশকিল হল আরেক সন্তান গর্ভেই থেকে যায়। প্রথম সন্তান অর্থাৎ কন্যা জন্মদেবার প্রায় ৩৯ দিনের মাথায় দ্বিতীয় সন্তান অর্থাৎ পুত্র সন্তানের জন্মদিন মহিলা। আসলে প্রথম সন্তান জন্মের পর শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় মহিলার তাই দ্বিতীয় সন্তানের জন্মের আগে কিছুটা সময় নিয়ে নেন ডাক্তারেরা। বর্তমানে মা ও সন্তান উভয়েই সুস্থ রয়েছেন।

তবে এমন এক বিস্ময়কর ঘটনা আগে কখনো ঘটেছে বলে মনে হয় না। আর যেহেতু মা হতে গেলে একটা দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়। তবেই সন্তানকে ভুমিষ্ট করা যায় পৃথবীতে, তাই ৩৯ দিনের মধ্যেই দ্বিতীয়বার সন্তানের জন্মদেবার এই ঘটনা খবর হতেই মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। এমনকি শিলা সেন অর্থাৎ যে ডাক্তার তাদের চিকিৎসা করছিলেন তিনিও পর্যন্ত এই ঘটনা যে বিরল তা স্বীকার করে নেন।

Related Articles

Back to top button