ওয়েব সিরিজছবিবিনোদন

পেটের দায়ে কাজ করেছেন হোটেলে, শপিং মলে! দীর্ঘ লড়াই করেই আজ সফল হয়েছেন ‘মির্জাপুর’এর বাবর

আমরা প্রায়ই শুনে থাকি ওটিটির (OTT) সৌজন্যে কাজের সুযোগ পেয়েছেন বহু উঠতি অভিনেতা-অভিনেত্রী। আবার এও শুনি, যথার্থ অভিনেতাদের কদর দিতে জানে ওটিটির দুনিয়া। কথাটা যে কতটা সত্যি তা আগেও বহুবার প্রমাণ পেয়েছি। ওটিটিতে অভিনয় করেই নিজেদের জাত চিনিয়েছেন আলি ফজল, পঙ্কজ ত্রিপাঠীর মতো অভিনেতারা। পেয়েছেন যথার্থ মর্যাদা। সেই তালিকাতেই নাম রয়েছেন আসিফ খানেরও (Aasif Khan)।

সুপারহিট ‘মির্জাপুর’এর (Mirzapur) বাবর হোক কিংবা ‘পঞ্চায়েত’এর ({Panchayat) দুলহে রাজা অথবা ‘পাতাল লোক’এর কবীর, বহু সুপারহিট সিরিজে অভিনয় করে দর্শকদের মন জয় করেছেন আসিফ। এখন তিনি হয়ে উঠেছেন ওটিটির দুনিয়ার এক পরিচিত মুখ। তবে এই আসিফেরই অভিনেতা হওয়ার লড়াইটা কিন্তু একেবারেই সহজ ছিল না। বরং অনেক সংঘর্ষ (Struggle) করেই আজ এই জায়গায় পৌঁছেছেন তিনি।

Aasif Khan

রাজস্থানে চিত্তোরগড় জেলার নিমবহেরা নামের এক শহরে জন্ম আসিফের। ছোট থেকেই পড়াশোনায় বিশেষ আগ্রহ ছিল না তাঁর। প্রখ্যাত কমেডিয়ান রাজু শ্রীবাস্তব ছিলেন তাঁর অনুপ্রেরণা। তাঁর পারফরম্যান্স দেখেই আসিফ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, বড় হয়ে চাকরি নয়, অভিনতের পথই বেছে নেবেন তিনি। কিন্তু আচমকা বাবার মৃত্যুর সঙ্গেই বদলে যায় তাঁর সম্পূর্ণ জীবন।

বাবার মৃত্যুর পর মা এবং দুই ভাইবোনের দেখভালের জন্য বিভিন্ন কাজ করা  শুরু করেছিলেন তিনি। তাই বলে অভিনেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখা বন্ধ করেননি তিনি। সেই স্বপ্ন পুরন করতেই একদিন বাড়ি থেকে পালিয়ে মুম্বই চলে আসেন তিনি। কিন্তু পড়াশোনা করেছিলেন মাত্র একাদশ শ্রেণি অবধি। তাই স্বাভাবিকভাবেই কোনও ভালো বেতনের চাকরি কপালে জোটেনি। পেটের দায়ে কাজ করেছেন হোটেলের ওয়েটার হিসেবে, মলের কর্মচারী হিসেবে। ৯ বন্ধু মিলে থাকতেন একটি ঘরে। এই লড়াইয়ে সবসময় আসিফের পাশে ছিলেন তাঁর মা।

Aasif Khan with his mother

তবে একদিন আসিফ বুঝতে পারেন, অভিনেতা হওয়ার জন্য অভিনয় শেখাটা খুবই জরুরি। ফিরে  যান রাজস্থানে। একতিই নাটকের দলের সঙ্গে যোগ দেন। টানা ৬ বছর থিয়েটারে কাজ করেন তিনি। সেই সঙ্গেই শেষ করেন স্কুলের পড়াশোনা। এরপর স্নাতক স্তরের পড়াশোনার জন্য ভর্তি হয়েছিলেন একটি মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে। যদিও অভিনয়ের টানে সেই পড়াশোনা সম্পূর্ণ হয়নি তাঁর।

এরপর মুম্বইয়ে ফিরে অডিশন দেওয়ার পর ‘ক্রাইম পেট্রোল’ ধারাবাহিকে একটি ছোট্ট চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান আসিফ। এরপর ‘টয়লেট এক প্রেম কথা’, ‘পরী’তেও অভিনয় করেছিলেন তিনি। তবে দু’টি সিনেমা থেকেই তাঁর অভিনীত চরিত্রগুলি বাদ পড়েছিল। ‘পরী’ মুক্তির পর আসিফ জোর করে তাঁর সকল বন্ধুদের সিনেমাটি দেখতে বলেছিলেন। তবে বন্ধুর মন যাতে ভেঙে না যায়, সেই কারণে তাঁরা কোনোদিন আসিফকে বলেননি যে তাঁর চরিত্রগুলি বাদ পড়েছে।

Aasif Khan

এরপর আসিফের সংগ্রাম আরও বেড়ে যায়। অনেক চেষ্টার পর অর্জুন কাপুর অভিনীত ‘ইন্ডিয়াজ মোস্ট ওয়ান্টেড’ ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পান। এরপর ‘নার্কোস মেক্সিকো’, ‘সেক্রেড গেমস’এর প্রচারের ভিডিওয় দেখা যায় আসিফকে। এরপরই বদলে যেতে থাকে এই প্রতিভাবান অভিনেতার ভাগ্য। ‘মির্জাপুর’, ‘পঞ্চায়েত’, ‘পাতাললোক’এ কাজের সুযোগ পান। অভিনয় করেছেন ‘পাগলেট’ সিনেমাতেও। আর এখন নিজের কাজের মাধ্যমেই আসিফ হয়ে উঠেছেন দর্শকদের অন্যতম পছন্দের অভিনেতা।

Related Articles

Back to top button