দিবারাত্রি খেটে উপার্জন করেও অর্থাভাবে ভুগছেন! এই জিনিসগুলি বাড়িতে রাখলেই আসবে টাকা


ভবিষ্যতের কথা ভেবে টাকা সঞ্চয় (Save Money) সকলেই করতে চায়। কিন্তু কজন আর সফল হয়! অনেকেই অনেক চেষ্টা করেন কিছু টাকা সঞ্চয় করার। কিন্তু শেষমেশ ব্যর্থ হন। এই যেমন ধরুন আপনি যথেষ্ট পরিশ্রম করেন টাকা  উপার্জনের জন্য। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত খেতেই চলেছেন, অর্থ উপার্জনের জন্য। অথচ পকেটের  হাল সেই একই রয়ে যাচ্ছে। না আছে বাং ব্যালেন্স না আছে হাতে টাকা, সঞ্চয় তো পরের কথা।

অনেকে অনেকভাবে প্লানিং করেন যে এভাবে টাকা সঞ্চয় করবেন ওভাবে সঞ্চয় করবেন। কিন্তু দিবারাত্রি খেতে উপার্জন করলেও কিছুতেই টাকা সঞ্চয় করতে পারছেন না। এমনকি সঞ্চয় তো দূরের কথা বাড়িতে থাকায় থাকছে না। বলতে গেলে একপ্রকার অর্থকষ্টে (Money Problem) ভুগছেন। আজ এই সমস্যার কিছু সমাধান নিয়ে হাজির হয়েছি। আসলে এমন কিছু জিনিস রয়েছে যেগুলি বাড়িতে থাকলে লক্ষী অর্থাৎ টাকার প্রবেশ হবেই হবে। এবার সেইরকম ৫টি জিনিস সন্মন্ধেই বলতে চলেছি।

১. চন্দন (sandlewood)

বাড়িতে ঠাকুর ঘরে পুজোর কাজে চন্দন কাঠ ব্যবহৃত হয়। আবার অনেকে ঠাকুরের আরাধনার জন্য চন্দনের ধুপকাঠিও ব্যবহার করেন। জানেন কি চন্দন বাড়ির নেগেটিভ এনার্জি কাটিয়ে তোলে, পজিটিভ এনার্জির প্রবেশ ঘটায়। যার ফলে সংসারের নানান সমস্যার সমাধান হতে পারে। এমনি কি  দীর্ঘদিনের অর্থকষ্ট সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে পারে।

২. মধু (Honey)

honey

মধু হল এমন একটি জিনিস হার অসংখ্য উপকারিতা রয়েছে। শারীরিক দিক থেকে ফিট থাকতে অনেকেই মধুসেবন করেন। আবার  সর্দিকাশিতেও মধু দারুন উপকারী। একইভাবে পূজার ক্ষেত্রেও মধুর ব্যবহার কিন্তু অনস্বীকার্য। আর সত্যিকথা বলতে গেলে মধু হল একটি পবিত্র বস্তু তাই বাড়িতে যদি মধু থাকে তাহলে তা শুভ।

৩. বীণা (Harp)

বীণা হল একটি বাদ্যযন্ত্র। মূলত সংগীতকারদের বাড়িতে বা যারা গান শেখে তাঁদের নারীতে বীণা দেখতে পাওয়া যায়। এই বীণা খুবই পবিত্র বলে মনে করা হয়। আর অনেকেই মনে করেন যে বীণা যদি বাড়িতে থাকা তাহলে অর্থের আগমন হতেই থাকে।

৪. ঘি (Ghee)

রান্না থেকে পূজা হোম-যজ্ঞ সবেতেই ঘি প্রয়োজনীয়। পূজার সময় হোমযজ্ঞ  করা হলে আগুনে মন্ত্র উচ্চারণ করতে করতে ঘি ঢালা হয়। বাড়ির জন্য শুভ এই ঘি দিয়ে ঠাকুরের সামনে প্রদীপ জ্বালালে বাড়ি থেকে বাজে শক্তির প্রভাব দূর হয় ও অর্থাগমনের পথ সুগম হয়।

৫. কাঠের বাঁশি (Wooden Flute)

হিন্দু ধর্মে রাধাকৃষ্ণকে ভক্তিমনে পূজা করা হয়। আর কৃষ্ণের বাঁশি সন্মন্ধে তো সকলেই জানেন। আপনার বাড়িতে যদি রাধা কৃষ্ণ থাকে তাহলে তার সাথে একটি  কাঠের বাঁশিও রাখুন। রোজ ভক্তি মনে পূজার সময় বাঁশিটিকেও পূজা করুন। তাহলেই দেখবেন আপনার পরিবারের ওপর পরে থাকা অশুভ ছায়া কেটে যাবে। এরপর খুব দ্রুত আপনার ভাগ্য খুলে যাবে।


Like it? Share with your friends!

660
1 share, 660 points