বিনোদনভাইরালভিডিও

উচ্ছেবাবু সন্দেশ আর ফুচকা এখন অতীত!বাজারে আসে গেল উচ্ছেবাবু এগরোল

ঘড়ির কাঁটায় রাত আটটা বাজতেই হাতের সমস্ত কাজ সেরে বাংলার সমস্ত সিরিয়াল প্রেমী দর্শকরাই টিভির সামনে বসে যান তাদের পছন্দের সিরিয়াল ‘মিঠাই’ দেখার জন্য। বিগত দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে দর্শকদের ভালোবাসায় দিনে দিনে বেড়ে চলেছে এই সিরিয়ালের জনপ্রিয়তা । তাই আজও  দর্শকমহলে অব্যাহত মিঠাই ম্যাজিক।

টিআরপি স্কোর যাই হোক না কেন প্রতিদিন সন্ধ্যেবেলায় মিঠাই না দেখলে গোটা দিনটাই অসম্পূর্ণ থেকে যায় দর্শকদের। তাই টিআরপির রেটিং পয়েন্ট যাই হোক না কেন, এই  সিরিয়ালের প্রতি দর্শকদের ভালোবাসার কিন্তু কমতি নেই একফোঁটাও। কিছুদিন আগেই এই সিরিয়ালের নায়িকা মিঠাই-এর  গুলি লেগেছে। সেই থেকেই বেশ কিছুদিন ধরে মনোহরায় নেমে এসেছিল দুঃখের ছায়া।

হাসপাতালের বেডে শুয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছিল সারাক্ষণ হাসিখুশি থাকা প্রাণোচ্ছল মিঠাই। উচ্ছে বাবুর শত চেষ্টা শর্তেও প্রথমে কিছুতেই জ্ঞান ফিরছিল না তার। শেষ পর্যন্ত গতকাল সিরিয়ালে জ্ঞান ফিরে এসেছে মিঠাইরানির। তারপর থেকেই তাকে কিছুতেই কাছ ছাড়া করছে না সিড।  সারাক্ষণ বৌকে চোখে চোখে রাখছে সে।

প্রসঙ্গত এই সিরিয়ালের দৌলতেই  দর্শক মহলে মিঠাই অভিনেত্রী সৌমিতৃষা কুন্ডু (Soumitrisha Kundu) এবং সিড অভিনেতা আদৃত রায়ের (Adrit Roy) দারুন ফ্যান ফলোয়িং রয়েছে। প্রসঙ্গত সিরিয়ালে মিঠাই সিড কে উচ্ছে বাবু বলে ডাকে। বেশ কিছুদিন আগেই সিরিয়ালে হেলদি কিচেন কম্পিটিশনে উচ্ছে বাবু সন্দেশ বানিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল মিঠাই। সেই থেকেই বাজারে যা কিছু সবুজ জিনিস আছে তার সাথেই ‘উচ্ছে বাবু’ নাম জুড়ে দিয়ে থাকেন মিঠাই ভক্তরা।

এরই মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলাতে উচ্ছেবাবু সন্দেশের পরে ভাইরাল হয়েছে উচ্ছেবাবু মোমো থেকে শুরু করে চিকেন এবং ফুচকা। এবার খোদ  কলকাতার বুকে এসে গেল উচ্ছে বাবু এগরোল। যাদবপুরের কাছে বিজয়গড়ের  চার নং মোড়ে তৈরী হচ্ছে এই এগ রোল যার নাম আসল নাম গন্ধরাজ এগ রোল।  রোজ বিকেল পাঁচটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকে এই দোকান।

তাহলে আর কি দেরি না করে আজ এই রোল হাতে নিয়ে টিভির পর্দায় দেখতে বসে যান আপনাদের পছন্দের সিরিয়াল মিঠাই। এই রোলের দাম ৭০ টাকা এবং চিকেন রোলের দাম ৮০ টাকা। এই চিকেন রোলের চিকেন টা বানানো হয় গন্ধরাজ লেবু দিয়ে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে এগরোলের পরোটাটা সবুজ রঙের। আর ইদানিং সবুজ যা কিছুই বাজারে দেখা যাচ্ছে তাকে উচ্ছেবাবু নাম দিয়ে দিচ্ছে মিঠাই ভক্তরা। আর বাজারে বিক্রির ক্ষেত্রেও এটা বিশেষভাবে সাহায্য করছে বিক্রেতাদের। মিঠাইয়ের কোন চরিত্র হোক কিংবা উচ্ছেবাবুর নাম খাবারের সাথে জুড়ে দিতে পারলেই তা বিক্রি হয়ে যাচ্ছে হট কেকের মতো।

Related Articles

Back to top button