বিনোদনসিরিয়াল

বিপদ কাটেনি এখনও! চিকিৎসায় সাড়া দিলেও ঐন্দ্রিলার শরীরে মিলল সংক্রমণ 

গতকাল সন্ধ্যায় অভিনেতা সব্যসাচী চৌধুরী (Sabyasachi Chowdhury) সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের মধ্যে দিয়ে প্রেমিকা ঐন্দ্রিলা শর্মা (Aindrila Sharma)-র হেল্থ আপডেট (Health Update) দিয়ে জানিয়েছিলেন চিকিৎসা সাড়া দিচ্ছেন ঐন্দ্রিলা। তিনি জানিয়েছিলেন টানা ছদিন পর ভেন্টিলেশন সাপোর্ট থেকেও বের করে আনা হয়েছে অভিনেত্রীকে। ২৪ ঘন্টা আগে সব্যসাচীর করা এই পোস্ট দেখে বেশ কিছুটা স্বস্তি পেয়েছিলেন অভিনেত্রীর অসংখ্য অনুরাগী।

কিন্তু এরইমধ্যে আজ অর্থাৎ মঙ্গলবার হাসপাতাল সূত্র মারফত খবর অভিনেত্রী শরীরে নতুন করে সংক্রমণের হদিশ মিলেছে। আপাতত সি-প্যাপ সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাঁকে। তাই চিকিৎসকরা জানিয়েছেন এখনও  সংকটমুক্ত নন অভিনেত্রী। তবে আশার কথা এই যে, এই অবস্থাতেও চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন পর্দার ‘জিয়নকাঠি’র নায়িকা।

Finally Sabyasachi Chowdhury opens up about Aindrila Sharma's health condition

প্রসঙ্গের গতকাল ফেসবুক পোস্টে ঐন্দ্রিলার স্বাস্থ্যের উন্নতির কথা জানিয়ে সব্যসাচী লিখেছিলেন  ‘হাসপাতালে ছয় দিন পূর্ণ হলো আজ, ঐন্দ্রিলার এখনও পুরোপুরি জ্ঞান ফেরেনি। তবে ভেন্টিলেশন থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছে, শ্বাসক্রিয়া আগের থেকে অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে, রক্তচাপও মোটামুটি স্বাভাবিক। জ্বর কমেছে। ওর মা যতক্ষণ থাকে, নিজের হাতে ওর ফিজিওথেরাপি করায়, যত্ন নেয়। বাবা আর দিদি ডাক্তারদের সাথে আলোচনা করে’।

Bama actor Sabyasachi shares Aindrila Sharma's health update

সব্যসাচী জানিয়েছিলেন তাঁর উপস্থিতিতে চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন ঐন্দ্রিলা। সব্যসাচীর কথায় ‘আমি দিনে তিনবার করে গল্প করি ঐন্দ্রিলার সাথে। গলা চিনতে পারে, হার্টরেট ১৩০-১৪০ পৌঁছে যায়, দরদর করে ঘাম হয়, হাত মুচড়িয়ে আমার হাত ধরার চেষ্টা করে। প্রথম প্রথম ভয় পেতাম, এখন বুঝি ওটাই ফিরিয়ে আনার এক্সটার্নাল স্টিমুলি’। একই কথা জানিয়ে ঐন্দ্রিলার মা শিখা দেবীও বলেছিলেন ‘সব্যসাচীর যে কোনও কথায় খুব ভাল সাড়া দিচ্ছে ঐন্দ্রিলা’।

প্রসঙ্গত গতকাল ঐন্দ্রিলার স্বাস্থ্যের খবর দেওয়ার পাশাপাশি এদিন ইউটিউবের কয়েকটি ভুয়ো ভিডিওর ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন সব্যসাচী।এ প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন ‘আমার আজকাল কিছুই লিখতে ইচ্ছা করে না, কিন্তু আজ কিছু মানুষের বর্বরতার নমুনা দেখে লিখতে বাধ্য হলাম। ইউটিউবের কল্যাণে কয়েকটা ভুয়ো ভিডিও আর ফেক্ থাম্বনেল বানিয়ে পয়সা রোজগার করা অত্যন্ত ঘৃণ্য মানসিকতার কাজ বলে আমি মনে করি, সেটা যে ওর বাড়ির লোকের মনে কেমন প্রভাব ফেলে তা হয়তো আপনারা বুঝবেন না। আমার চোখে ওর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটেনি, অবনতি ঘটেছে মানবিকতার’।

Related Articles

Back to top button