বিনোদনসিরিয়াল

মাধ্যমিকে সেকেন্ড, H.S এ প্রথম, এম.বি.এ কোর্স! তিথির শিক্ষাগত যোগ্যতা শুনে হেসে খুন নেটিজেনরা

সিরিয়াল মানেই দর্শকদের অত্যন্ত পছন্দের একটি বিষয়। তাই অবসর সময়ে সিরিয়াল দেখতে ভালোবাসেন কমবেশি সকলেই। দর্শকদের পছন্দের তালিকায় থাকা এমনই একটি মেগা সিরিয়াল হল স্টার জলসার ‘বরণ’ (Boron)। তাই বয়স বেশিদিন না হলেও অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই এই ধারাবাহিকটি দর্শকমনে পাকাপাকিভাবে জায়গা করে নিয়েছে।

মাত্র অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই টিআরপির দৌড়েও ছোট্টো ছোট্ট পায়ে এগোতে শুরু করেছে রুদ্রিক -তিথির (Rudrik-Tithi) মিষ্টি প্রেমের কাহিনী। উল্লেখ্য শুরু থেকেই রুদ্রিক আর তিথির একে অপরের বিপরীত চরিত্রের। তবে ধীরে ধীরে নিজেদের অজান্তেই সমস্ত ভুল বোঝাবুঝি মিটিয়ে একে অপরের কাছাকাছি আসতে শুরু করেছে তারা।

প্রায় সব ধারাবাহিকেই এমন এমন জিনিস দেখানো হয় যা বাস্তব জীবনে কার্যত অসম্ভব৷ আর তা দেখা মাত্রেই হাসির ফোয়ারা ছোটে নেটপাড়ায়। আর এবার ‘বরণ’ ধারাবাহিকের তিথির কথা শুনে এমনই ট্রোলের ঝর উঠেছে। এই ধারাবাহিকের একটি ক্লিপিংস ভাইরাল হয়েছে যেখানে নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতা জানিয়েছে ধারাবাহিকের তিথি।

রুদ্রিকের বাড়ির সদস্যদের কাছে নিজের শিক্ষার বড়াই করতে গিয়ে তিথি জানায়, মাধ্যমিকে সে সেকেন্ড হয়, উচ্চ মাধ্যমিকে প্রথম। এরপর MBA কোর্স করে। বিদেশী কোম্পানিতে চাকরিও করে সে। বুঝতেই পারছেন তিথি যেগুলো বলছে সেগুলো বাস্তবে কতটা কঠিন। তার উপর এত শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েও তিথি ধারাবাহিকে কাজের কাজ কিছুই করেনা।

তিথির কথা শুনে হেসে খুন নেটিজেনরা। কেউ বলছে, “HS এর পরে MBA? কোন ইনস্টিটিউশন থেকে বলবে না মানে আমিও করতাম”। আবার, কেউ বলছে “তাও পেপারে বা খবরে দেখায়নি” এক নেটিজেন তো তিথির কথা শুনে বলে বসে, “ভাই কেউ আমাকে একটু বিষ দে আমি জলে গুলে মাখি”। ইতিমধ্যেই ভিডিওর ভিউ ছাড়িয়েছে ৫০ হাজার।

Related Articles

Back to top button