গসিপবিনোদনসিনেমা

বলিউড অভিনেতারাও করেন না ! দক্ষিণের এই সুপারস্টাররা সিনেমার পাশাপাশি সমাজসেবায় করেন

দক্ষিণের ছবির দাপট সারা দেশ তথা বিশ্বজুড়ে বহমান। বর্তমানে, রামচরণ এবং জুনিয়রের এনটিআর ফিল্ম ‘আরআরআর’ এবং রকিং তারকা যশের ছবি ‘কেজিএফ চ্যাপ্টার 2’ বক্স অফিসে ঝড় তুলছে। RRR এখনো পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী আয় করেছে ১১০০ কোটি টাকা , যেখানে KGF চ্যাপ্টার 2 মুক্তির ১১তম দিনে ৬৫০ কোটি টাকার ব্যবসা করেছে। শুধু  সব ছবিরই হিন্দি সংস্করণও তুমুল জনপ্রিয় হয়েছে। শুধু তাই নয় গত এক বছরে মুক্তি পাওয়া দক্ষিণের সব ছবিই তুমুল সফল। সুতরাং ,বোঝাই যাচ্ছে সাউথের হিরোদের জনপ্রিয়তা ঠিক কতটা এইমুহূর্তে।

তবে শুধু অভিনয় নয় দক্ষিণের এমন অনেক অভিনেতা রয়েছেন ,যারা সমাজ সেবাও করে থাকেন। তাই দক্ষিণের রাজ্যের লোকেরা এই তারকাদের পূজা করে, তাদের ঈশ্বর জ্ঞানে সম্মান করেন। তাদের ছবি রিলিজ হলে দর্শকেরা তাদের ছবির পোস্টার দুধে স্নান করান। করোনা মহামারীতে সোনু সুদ যেভাবে মানুষকে সাহায্য করেছেন, মানুষ তাকে মসীহা বলা শুরু করেছে। বলিউডের কথা বলতে গেলে অক্ষয় কুমার দুঃস্থদের সাহায্য করেন ,কিন্তু আর কোনও বলিউড অভিনেতা এভাবে হাত খুলে দেন করেন না , কিন্তু দক্ষিণের এই অভিনেতারা তাদের সমাজ সেবামূলক কাজের জন্যই বিখ্যাত।

1. রাম চরণ (Ram Charan) :

এসএস রাজামৌলি পরিচালিত রামচরণের ছবি ‘আরআরআর’ গত মাসের ২৫ মার্চ মুক্তি পেয়েছে। তিনি দক্ষিণের একজন নামজাদা অভিনেতা , অভিনয়ের পাশাপাশি অন্যন্য ব্যবসার সাথেও তিনি যুক্ত। তিনি হায়দ্রাবাদ ভিত্তিক এয়ারলাইন ট্রু জেটের মালিক। যেমন তার যায় তেমনই ব্যয় , রামচরণ তার বাবার নামে একটি চ্যারিটেবল ট্রাস্ট শুরু করেছেন। ট্রাস্ট রক্তদান এবং চক্ষুদান নিয়ে কাজ করে। এর মাধ্যমে তিনি দরিদ্রদের সাহায্য করার সর্বাত্মক চেষ্টা করেন।

2. সূর্য (Surya) :

সূর্য তামিল ছবির বিখ্যাত অভিনেতা। তার ছবি জয় ভীম গত বছর মুক্তি পায়, যেটি অস্কারের জন্যও মনোনীত হয়েছিল। সূর্য তামিল ভাষার ‘কৌন বনেগা ক্রোড়পতি’ হোস্ট করেন। করোনা মহামারীর সময়ে , যখন অসংখ্য মানুষ চাকরি হারিয়ে দুর্দশায় দিন কাটাচ্ছিল তখন সূর্য তার ফ্যান ক্লাবের আড়াইশ সদস্যের জন্য মসীহা হয়ে আবির্ভূত হয়েছিলেন , দেন করেছিলেন অসংখ্য টাকাও।

3. মহেশ বাবু (Mahesh Babu) :

তেলেগু ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির বিখ্যাত সুপারস্টার মহেশ বাবুর কোনো পরিচয়ের প্রয়োজন নেই। তিনি দক্ষিণী সিনেমার সালমান খান নামেও পরিচিত। তিনি ২০১৯ সালে অন্ধ্র হাসপাতাল এবং হিলিং লিটল হার্টস নামে একটি সংস্থার সাথে হাত মিলিয়েছিলেন, এবং এর পর প্রায় ১০০০ শিশুর সার্জারির খরচ বহন করেছেন তিনি। ২০১৬সালে, তিনি অন্ধ্র প্রদেশের বারিপালম এবং তেলেঙ্গানার সিদ্ধপুরম গ্রামগুলিকেও দত্তক নিয়েছিলেন।

4. রজনীকান্ত (Rajinikanth) :

দেশের সবচেয়ে বড় সুপারস্টার রজনীকান্ত এত বড় তারকা হওয়া সত্ত্বেও তার সহজাত প্রবৃত্তির জন্য পরিচিত। তিনি দক্ষিণের মানুষের কাছে ভগবান ছাড়া আর কিচ্ছু নয়। তিনি নিজের বিপুল আয়ের প্রায় অর্ধেক টাকা দান করে দেন যা সুবিধাবঞ্চিতদের সামাজিক কল্যাণে ব্যবহার করার জন্য।

Related Articles

Back to top button