হার্টকে সুস্থ ও ইয়ং রাখতে অবশ্য খান এই পাঁচটি খাবার


মানুষের শরীরের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলির মধ্যে অন্যতম হল হৃদপিন্ড (Heart)। সারা দেখার রক্তের সঞ্চালন ও দেহের প্রতিটি কোষে অক্সিজেন পৌঁছানোর কাজ করে হার্ট।  শরীরের এতটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ করলেও হার্টের প্রতি কিন্তু সকলে যত্নবান নন। যার কারণে বর্তমান যুগে অনেকেই হার্টের সমস্যায় ভোগেন। আজ হার্টকে ভালো রাখবে এমন কিছু খাবারের সন্মন্ধে জানাতে চলেছে আপনাদের।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের মতে পটাশিয়াম যুক্ত খাবার হৃদরোগ বা হার্টের নানান সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করে। আর আমাদের চারিপাশে এমন অনেক খাদ্য রয়েছে যাতে পটাশিয়াম উপস্থিত। আসুন দেখে নেওয়া যাক এমন পাঁচটি খাবার যাতে পটাশিয়াম রয়েছে। যেটা আমাদের হার্টকে সুস্থ রাখতে খুবই প্রয়োজনীয়।

আলু :

বাঙালির খাবারে আলু থাকবে না তাও আবার হয় নাকি! বাজারে নানান ধরণের আলু পাওয়া যায়। তবে মজার ব্যাপার হল সব আলুই পটাশিয়ামের উৎস হিসেবে কাজ করে। তাই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় আলু রাখলে পটাশিয়ামের অভাব পূরণ করা যেতে পারে যা হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

ডাবের জল :

গরমকাল হোক বা বছরের অন্য কোনো সময় অনেকেই নিয়মিত ডাবের জল পান করেন। আপনি কি জানেন ডাবের জল আপনার শরীরকে সতেজ রাখবে। প্রাকৃতিক সুস্বাদু এই পানীয় বিভিন্ন পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। ডাবের জলের মধ্যে যথেষ্ট পটাশিয়ামও রয়েছে। যেটা হার্টের জন্য দারুন উপকারী।

কমলালেবুর রস :

অনেকেই সকালের ব্রেকফাস্টে কমলালেবুর রস খান। আবার অনেকেই মাঝে মধ্যেই অরেঞ্জ জুস খেতে পছন্দ করেন। এটি যে শুধু তেষ্টা মেটায় তা কিন্তু নয়। ভিটামিন-সি ও পটাশিয়াম সম্মৃদ্ধ কমলালেবুর রস। আর পটাশিয়াম থাকার দরুন হার্টের জন্য এই কমলালেবুর রস বেশ ভালো।

ডালিম :

ডালিমও পটাশিয়াম সমৃদ্ধ একটি প্রাকৃতিক ফল। এতে রয়েছে ফাইবার, প্রোটিন, ভিটামিন-সি, কে এবং ফোলাট (ফলিক অ্যাসিড ও ভিটামিন-বি৯ এর সংমিশ্রণ)। নিয়মিত ডালিম খাওয়ার ফলে প্রদাহজনিত সমস্যা প্রতিরোধে শরীরকে সহায়তা করে। আর পটাশিয়াম থাকার জন্য হার্টের সমস্যাও দূরে রাখতে সাহায্য করে।

তরমুজ :

বর্তমানে গরমকাল পরে গিয়েছে। গরমে অনেকেই বাজার থেকে তরমুজ কিনে খান। আর নিয়মিত তরমুজ খাওয়া হৃদপিণ্ডের স্বাস্থ্যের উন্নতিতে বিশেষ ভূমিকা রাখে। পটাশিয়ামযুক্ত এই তরমুজ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে।


Like it? Share with your friends!

570
570 points