ছবিবিনোদনসিনেমা

পুরুষতন্ত্রের বিরুদ্ধে কড়া বার্তা! শাড়ি ছেড়ে ধুতি পাঞ্জাবিতে স্বস্তিকা হলেন ‘বাঙালি বাবু’

জনপ্রিয় প্রবাদ ‘বিউটি উইথ ব্রেন’ কথাটির উপযুক্ত উদাহরণ হলেন বাংলা সিনেমার প্রথম সারির অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় (Swastika Mukherjee)। বাংলা ইন্ডাস্ট্রির অন্য ঘরানার অভিনেত্রীর স্পষ্টবাদী হিসাবেও যথেষ্ট সুনাম রয়েছে ইন্ডাস্ট্রিতে। তাই বরাবরই সোশ্যাল মিডিয়ার নেটিজেনদের নিন্দার ধার ধরেন না অভিনেত্রী। বরং বরাবরই তার ছকভাঙ্গা ড্রেসিং সেন্স কিংবা স্টাইল স্টেটমেন্ট হয়ে দাঁড়ায় অনেক মানুষের মাথাব্যথার কারণ।

তবে কোনদিনই সেসবকে খুব একটা পাত্তা দেননি অভিনেত্রী। স্বস্তিকা বরাবরই স্বাধীন চিন্তাভাবনাকেই সমর্থন করে এসেছেন। তাই সোচ্চার হয়েছেন লিঙ্গবৈষম্যের বিরুদ্ধে। তাই অন্যের কথায় কান না দিয়ে জীবনটাকে চুটিয়ে উপভোগ করাতেই বেশি বিশ্বাসী স্বস্তিকা। আজকালকার দিনের  তথাকথিত টলিউড অভিনেত্রীদের মতো মারকাটারি ফিগার কোনদিনই ছিল না অভিনেত্রীর। আর তার জন্যই কারো কাছে কার্ভি তো কারো কাছে চর্বির স্তুপ বলে কটাক্ষ সহ্য করতে হয়েছে স্বস্তিকাকে।

কিন্তু তাতে কি স্বস্তিকা তো স্বস্তিকাই। তাই  শাড়ি হোক কিংবা ওয়েস্টার্ন পোশাক সবেতেই তিনি আকর্ষণীয়।  তাই স্বস্তিকার ফ্যানরা বলে থাকেন ‘তিনি পোশাক পরেন না বরং পোশাক তাকে পরে’। আর এবার লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে বার্তা দিতে অভিনেত্রী নিজেকে সাজিয়ে তুলেছিলেন ধুতি আর পাঞ্জাবিতে (Dhuti Panjabi)। বাংলার শ্রীমতি থেকে হঠাৎ করেই তিনি ধরা দিলেন বাঙালি বাবু রূপে। সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) ঝড়ের বেগে ভাইরাল (Viral) হয়ে পড়েছে সেই ছবি।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্যাশন ডিজাইনার অভিষেক রায়ের (Abhishek Roy) কালো পাঞ্জাবি আর সাদা ধুতি পরা বেশ কিছু ছবি শেয়ার করেছিলেন স্বস্তিকা। সেই ছবির ক্যাপশনে তিনি লিখেছিলেন ‘নারীরা প্রত্যেকদিনই দেবী।  এটা অস্বীকার করার উপায় নেই, যে মেয়েরা শক্তিশালী আজ এবং প্রতিদিন’।  বাংলার সেলিব্রিটি ফ্যাশন ডিজাইনার অভিষেক রায়, এদিন স্বস্তিকাকে সাজিয়েছিলেন নিজের মনের মতো করে কালো পাঞ্জাবি আর সাদা ধুতিতে।  সেইসাথে স্বস্তিকা পরেছিলেন কোলাপুরি জুতো।  আর গলায় চওড়া মিনাকারি হার,আঙুলে আংটি, নাকে নাকছাবি।

সবমিলিয়ে এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে বার্তা দেওয়া স্বস্তিকার এই অনন্য রূপ দেখে এক কথায় হক চকিয়ে গিয়েছিলেন নেটিজেনদের অনেকেই । বাংলা শ্রীমতি থেকে হঠাৎ করে বাঙালি বাবুর সাজে তাকে দেখে বেশ কিছুটা হলেও অবাক হয়েছেন অনেকেই। স্বস্তিকার পোশাক শিল্পী অভিষেক রায়ের কথায় এখনকার দিনে দেখা যায় অনেক পুরুষরাই মেয়েদের মত শাড়ি জড়িয়ে কিংবা লম্বা চুলে খোপায় খোপা এঁটে নিত্যনতুন স্টাইল স্টেটমেন্ট তৈরি করছেন।

তাই সে দিক দিয়ে দেখতে গেলে নারীরাই বা পিছিয়ে থাকবেনা কেন! তাই লিঙ্গ বৈষম্যের বিরুদ্ধে বার্তা দিয়ে  ধুতি পাঞ্জাবিতে সাজিয়ে তুলতে স্বস্তিকাকেই বেছে নিয়েছিলেন অভিষেক। পুরুষদের পোশাকে স্বস্তিকার এই সাজ প্রশংসা পেয়েছে অনেকের কাছেই। অনুরাগীদের কথায় শাড়ি হোক কিংবা ধুতি পাঞ্জাবি স্বস্তিকা যাই পড়ুন না তাতেই তিনি অনন্যা।

Related Articles

Back to top button