বিনোদন

বয়স না হতেই টিকা পেয়ে গেলেন সৃজিত মুখার্জি ! নেটিজেনদের কটাক্ষের মুখে পরিচালক

ইতিমধ্যেই দেশজুড়ে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় এগোচ্ছে গণ-করোনা টিকাকরণ (Mass Covid Vaccination)। এমতাবস্থায় টিকার (Vaccine) উপরেই গোঁসা করে বসলেন টলিউডের (Tollywood) নামজাদা পরিচালক (Director) সৃজিত মুখার্জি (Srijit Mukherji)। যদিও তাঁর টিকাকরণ নিয়ে যেভাবে দানা বাঁধছে বিতর্ক, তাতে সোশ্যাল মাধ্যমে (Social Media) সৃজিতকে ক্রমশ বাড়ছে জল্পনা।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের (Central Health Ministry) নিয়মাবলী অনুযায়ী, ষাটোর্ধ্ব এবং ৪৫ বছরের উর্দ্ধে কো-মর্বিডিটি (Co-morbidity) যুক্ত নাগরিকরাই একমাত্র কোভিড টিকা পাচ্ছেন। যদিও সূত্রের খবর অনুসারে, প্রথম ধাপের ডোজ পেলেও প্রোটোকলের (Protocol) ফাঁসে আটকে গেছে সৃজিতের দ্বিতীয় ধাপের টিকাকরণ। যদিও সকলের মনে প্রশ্ন একটাই, ৪৪ বছর বয়সে সৃজিত প্রথম ডোজটাই বা পেলেন কি করে? স্বাভাবিকভাবেই নিরুত্তর সৃজিত।

জানা যাচ্ছে, বুধবার সোশ্যাল মঞ্চে নিজ অভিযোগের উপর ভিত্তি করে একটি পোস্ট (Post) করেন পরিচালক। তারপর থেকেই তাঁর অভিযোগের ভিত্তি ঘিরে উঠতে থাকে একের পর এক প্রশ্ন। বয়স ৪৫ বছর হওয়ার আগেই বেসরকারি হাসপাতালে কিভাবে সৃজিত টিকা নিলেন, সে বিষয়েও সরাসরি সেলেবকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন নেটিজেনরা (Netizen)।

সোশ্যাল মাধ্যমে শত শত প্রশ্নের মুখে অপ্রস্তুত হয়ে পোস্টটি সরিয়ে নেন সৃজিত। বদলে নতুন পোস্ট করে সৃজিত জানান, এক বন্ধুর থেকে তিনি জানতে পারেন যে বয়স চুয়াল্লিশ পেরোলেই নাকি নেওয়া যাবে টিকা। আর তাই টিকাও নিয়ে নেন তিনি। পরে যখন তিনি নিজের ভুল বুঝতে পারেন, ততক্ষণে নাকি অনেক দেরি হয়ে গেছে বলেই মত পরিচালকের। নিজের উচ্চ-রক্তচাপের সম্পর্কেও নেটিজেনদের জানান সৃজিত!

প্রথম ডোজ নিয়ে দ্বিতীয় ডোজ না নিলে যে নানা শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন নাগরিকরা, সে সম্পর্কে আগেই জানিয়েছেন করোনাবিদরা। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার সময় নিয়মের কড়াকড়িতে স্বাভাবিকভাবেই বেজায় চটেছেন পরিচালক। অভিমান করে সৃজিতের বক্তব্য, সংক্রমণের আশঙ্কা বহুগুণে বেড়ে গেলো কিছুতেই আর ওই হাসপাতালের মুখোমুখি হবেন না তিনি। যদিও এহেন ঘটনায় উক্ত বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিক্রিয়া কিরূপ, তা এখনও অজানা।

Related Articles

Back to top button