বিনোদনসিরিয়াল

টলিপাড়ায় করোনা বিধি দিকেই উঠেছে! ক্ষোভ প্রকাশ করলেন ‘শ্রীময়ী’ অভিনেত্রী ইন্দ্রানী হালদার

আমাদের সকলের প্রিয় ইন্দ্রানী হালদার (Indrani Haldar) বর্তমানে যার আর একটি পরিচয় হয়েছে, তিনি এখন সকলের কাছে শ্রীময়ী (Sreemoyi) হিসাবে পরিচিত। শ্রীময়ী মুখ খুললেন ফেডারেশন এর বিরুদ্ধে। কোরোনার প্রকোপের শিকার হয়েছেন ইতিমধ্যে অনেক অভিনেতা অভিনেত্রীরা। শ্রীময়ীর বক্তব্য অনুযায়ী অভিনেতা অভিনেত্রী দের সেফটি নিয়ে কোনো মাথা ব্যাথা নেই  ফেডারেশনের। গত বছর যেভাবে সুরক্ষার প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল এবারে তার অনেকাংশই নেই। অবহেলা স্পষ্ট টালিপাড়ার সর্বত্র।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ (Corona Second Wave) যা খুবই ভয়ঙ্কর রূপ ধরে একপ্রকার ফিরে এসেছে, যে ইতিমধ্যে প্রাণ কেড়েছে হাজার হাজার মানুষের মাত্র কয়েক মুহূর্তে তাকে অনায়াসেই এখনো অবহেলা করা হচ্ছে। যার ফলে একে একে অনেক কলাকুশলীরাই করোনার শিকার হচ্ছেন। গত বছর এই ভাইরাস অনেক নক্ষত্রের পতন ঘটিয়েছিল তাও ভোলার নয়। শ্রীময়ী বড়োই আক্ষেপের সুরে বলেছেন, ‘শুটিং এ অনেকেই এখনো বিনা মাস্ক এ ঘুরে বেড়ান’। তিনি বলেছেন গত বছর যা যা নিয়ম বিধি চালু করা হয়েছিল সব ফিরিয়ে আনা হবে ফের।

শ্রীময়ী sreemoyi

শুধু শ্রীময়ী নয় অনেক অভিনেতা অভিনেত্রী রাই এই ধরণের অভিযোগ করেছেন কেউ প্রকাশ্যে তো আবার কেউ গোপনে। প্রায় সমস্ত শুটিং সেটে পরিস্থিতি একই। তবে শ্রীময়ীর কথা অনুযায়ী ফেডারেশন যখন ভাবছেন না তাদের সুরক্ষার কথা তখন প্রত্যেক শিল্পীর উচিত নিজের সুরক্ষার ব্যাপারে সতর্ক হওয়া। শ্রীময়ী সেটে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন কভিড বিধি মেনে শুটিং না হলে তিনি শুটিং বয়কট করবেন। তিনি সম্পূর্ণ সুরক্ষা বিধির আয়োজন না দেখলে শ্যুটিং থেকে বিরতি নেবেন।
এই বছর নির্বাচনের মঞ্চেও ইন্দ্রানী হালদারকে  উপস্থিত থাকতে দেখা যায় নি। তিনি জানিয়েছিলেন তিনি রাজনীতিতে ঢুকতে চান না। তিনি একজন অভিনেত্রী আর তিনি অভিনেত্রীই থাকতে চান নেত্রী হওয়ার কোনোই ইচ্ছা তার নেই। সম্প্রতি এই নিয়ে ফেডারেশনের তরফে একটি তড়িঘড়ি বৈঠক ডাকা হয়েছিল। এর ওপর একটি কারণ ও ছিল। গত দুদিন আগে ষ্টুডিও পাড়ার এক অতি পরিচিত টেকনিশিয়ান সুকান্ত চক্রবর্তী করোনা ভাইরাস এর শিকার হয়ে মারা গেছেন। আর তাই তড়িঘড়ি এই বৈঠক। তবে শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়ের দাবি, আর্টিস্টরাই সবচেয়ে বেশি রিস্ক নিয়ে কাজ করছেন। সবকিছু মিলিয়ে ষ্টুডিও পাড়ায় মনোমালিন্যের ছবিটা বেশ স্পষ্ট হয়ে পড়েছে।

Related Articles

Back to top button