গসিপগানবিনোদন

চাইনা এতো জনপ্রিয়তা! শৈশব নষ্ট হতে দিতে চান না, তাই ছেলেকে বিদেশে পাঠিয়ে দিলেন সোনু নিগম

সোনু নিগম (Sonu Nigam) গান ভালোবাসে অথচ এনার গান শোনেনি এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া দুস্কর। দেশের ভার্সাটাইল গায়কদের মধ্যে অন্যতম হলেন সোনু নিগম। তাঁর গানের জাদুতে মুগ্ধ গোটা দুনিয়া। আসলে গান তাঁর রক্তে ছিল ছোট থেকেই। কারণ সোনুর বাবা অগম কুমার নিগম এবং প্রয়াত মা শোভা নিগম দুজনেই ছিলেন গায়ক। এমনকি সোনুর ছেলে নিভানও (Nevaan Nigam) ছোট থেকেই গানের কায়দা বেশ রপ্ত করে ফেলেছে।

ছেলের বয়স যখন মাত্র ৪ বছর তখন আধো আধো গলাতেই ‘কোলাভেরি ডি’ গানের রেকর্ডিং করে শেয়ার করেছিলেন বাবা সোনু নিগম। ছোট্ট নিভানের সেই গান মুহূর্তের মধ্যেই শ্রোতাদের মন জিতে নিয়েছিল। এমনকি সেই সময় সর্বত্রই ভাইরাল হয়ে পড়েছিল সোনুর ছেলের গলায় গান। বাবার মত জনপ্রিয়তা ছোট বেলাতেই পেয়ে গিয়েছিল সে।

কিন্তু এতো জনপ্রিয়তা হোক বা প্রচারে আসুক ছেলে চান না সোনু। গায়কের কথায়, ‘জনপ্রিয়তা নিয়ে বেশ মাথা ঘামালে চলবে না। আচমকা আসা খ্যাতিকে পাত্তা দিলেই মুশকিল। আমি যদি আমার ছেলেকে নিয়ে এখন থেকেই মাতামাতি আরম্ভ করতাম বা ওকে দিয়ে গান রিলিজের চেষ্টা করতামটি তাহলে ওর পক্ষে সেটা চাপ হয়ে যেত। কিন্তু বাবা হিসাবে ওর শৈশব নষ্ট করতে চাই না আমি’।

আর পাঁচটা বাচ্চার মত হেসে খেলেই ধীরে ধীরে বড় হয়ে উঠুক নিভান, এটাই চান সোনু। গায়ক বলেন, ‘আমি চাই না আমার চাইলে শুটিং, পার্টি বা খ্যাতির পেছনে ছুতে বেড়াক’। একপ্রকার জৌলুষ আর গ্ল্যামারের এই দুনিয়া থেকেই একপ্রকার ছেলেকে দূরেই রাখতে চান সোনু ও তাঁর স্ত্রী। তাই বড়সড় সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেছেন তিনি।

নিজের স্ত্রী ও ছেলেকে দুবাইতে পাঠিয়ে ছিলেন সোনু নিগম। এই প্রসঙ্গে সোনু জানান, ‘আমরা চাইতাম ছেলেকে বিদেশ থেকে পড়াতে। আবার ওকে নিজেদের থেকে দূরে সারাতেও চাই নি। ২০০৯ সালে ভেবেছিলাম সপরিবারে মুম্বাই ছেড়ে আমেরিকায় পাড়ি দেব কারণ মাধুরিমার গ্রীন কার্ড আছে। কিন্তু আমেরিকা থেকে মুম্বাইতে যাতায়াত অনেকটাই সমস্যার। তাই শেষে দুবাইয়ে থাকার সিদ্ধান্ত নিই।

Related Articles

Back to top button