গসিপবিনোদনসিনেমা

‘ষ্টারকিডরা অন্তত কেঁদে বেড়ায় না’! বিটাউনে নেপোটিজম নিয়ে, বহিরাগতদের একহাত নিলেন সোনাক্ষী

নেপোটিজম (Nepotism) যে বলিউডের একটা জ্বলন্ত বৈশিষ্ট্য তা সুশান্ত সিং রাজপুতের (Sushant Singh Rajput) মৃত্যুর পরেই আমাদের কাছে একেবারে জলের মতো পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে। তাই অনেকেই বলেন ‘গডফাদার’ (God father) না থাকলে বলিউডে টিকে থাকা কার্যত অসম্ভব। তবে এবার ষ্টার কিডদের কেরিয়ার নিয়ে মুখ  খুললেন বিখ্যাত অভিনেত শত্রুঘ্ন সিনহা কন্যা সোনাক্ষী সিনহা (Sonakshi Sinha)।

নেপোটিজম বিতর্ক বিটাউনে বহুদিনের, অনেক এমন অভিনেতা অভিনেত্রী রয়েছেন যারা শেষ মুহূর্তে ছবি থেকে  বাদ পড়েগিয়েছেন। এরপিছনে কারণ ষ্টার কিডরা, একথা বহুবার বলা হয়েছে। এবার এই ধরণের কথা শুনে নিজেকে আর শান্ত রাখতে পারলেন না সোনাক্ষী। এক সংবাদ মাধ্যমকে সাক্ষৎকার দিতে গিয়ে ষ্টার কিড হলেও নিজের অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন অভিনেত্রী।

Sonakshi SInha Satrughna Sinha

অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসা করা হয়, তিনি কোনোদিন ছবি থেকে বাদ পড়েছেন কি না! যার উত্তরে অভিনেত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের সাথেই জানান, হ্যাঁ অবশই ব্যাড পড়েছি। এমনটা তো সকলের সাথেই হয়েছে , আমি নিজেই ব্যাড পড়েছি অনেক ছবি থেকে। ইন্ডাস্ট্রিতে সবাইকেই একসময় ছবি থেকে বাদ পড়তে হয়। কিন্তু পার্থক্য হল এর জন্য কাঁদুনি গাইতে বসে না কেউ যে ওর জন্য আমায় ছবি থেকেই বাদ যেতে হল।

Sonakshi Sinha সোনাক্ষী সিনহা

সোনাক্ষীর মতে, এই বিষয়টা সবাইকে মেনে নিতেই হবে। এটা খুবই স্বাভাবিক একটা ব্যাপার। এই প্রসঙ্গে সোনাক্ষী আরো বলেন, আমি না হয় স্টারকিড আমার কথা নাই বা ধরলেন। আমার বাবা শত্রুঘ্ন সিনহার বাবা তো আর সুপারস্টার ছিলেন না তাকেও একসময় রিজেক্ট হতে হয়েছিল। সব অভিনেতা অভিনেত্রীদের জীবনেই ছবি থেকে বাদ পরার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এটা কাজেরই একটা অংশ বলা যেতে পারে। তাবলে ভেঙে পড়লে চলে না, এগিয়ে যেতে হবে তবেই তো সাফল্য পাওয়া যাবে।

Sonakshi Sinha সোনাক্ষী সিনহা

প্রসঙ্গত, সোনাক্ষী সিনহা বলিউডে ডেবিউ করেছিলেন সালমান খানের সাথে ‘দাবাং’ ছবিতে অভিনয় করে। সেই সময় ভারী চেহারার জন্য মোটা অভিনেত্রী বলে ব্যাপক কটাক্ষ করা হয়েছিল সোনাক্ষিকে। তবে  কটাক্ষের কান না দিয়ে নিজেকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলেছেন অভিনেত্রী। দাবাং এর পর একাধিক সুপার ছবিতে দেখা গিয়েছে তাকে। সম্প্রতি অজয় দেবগনের বিপরীতে ‘ভূজ’ ছবিতেও অভিনয় করেছেন সোনাক্ষী।

Related Articles

Back to top button