সারেগামাপা গ্র‍্যান্ডফিনালে নিয়ে তোলপাড়! বিচারক জয় সরকারকে আক্রমণ নেটিজেনদের


জী বাংলার (Zee Bangla) জনপ্রিয় গানের রিয়ালিটি শো ‘সারেগামাপা (Saregamapa)’। রবিবারই ছিল সারেগামাপা ২০২০ এর গ্রান্ড ফাইনাল। আর এবারের সারেগামাপাতে মাটির গান গাওয়া অর্কদীপ মিশ্রের (Arkadeep Mishra) হাতেই উঠল সারেগামাপা চাম্পিয়ানের ট্রফি। কিন্তু মুশকিলটা হল সেখানেই, বিচারকদের মতে অর্কদীপ সারেগামাপা বিজয়ী হলেও নেটিজেনদের কাছে সেটা মোটেও গ্রহণযোগ্য হয়নি। নেটিজেনদের অনেকের মতেই এটা অন্যায় হয়েছে, অর্কদীপের থেকে অনেক ভালো মানের গান গেয়েছে নীহারিকা বা অনুষ্কা। তাদের বদলে অর্কদীপকে বিজয়ী হিসাবে মেনে নিতে নারাজ দর্শকেরা।

ইতিমধ্যেই নেটিজেনদের অভিযোগের তীর গিয়ে বিঁধেছে বিচারকদের। নেটিজেনদের দাবি ‘সারেগামাপা ২০’ এর বিচারকরা পার্শিয়ালিটি করেছেন। তাদের বিচার ‘অস্বচ্ছ’। ইমন চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে নেটিজেনদের অভিযোগ অর্কদীপের থেকে টাকা খেয়েই এমন বিচার করেছেন তিনি। ক্ষোভে বিচারকমন্ডলীকে ‘বজ্জাত’, ‘খারাপ’, ‘চোর’ তকমাও দিয়েছেন নেটিজেনদের একাংশ।

কাঠগড়ায় তোলা হয় অন্যতম এই শোয়ের অন্যতম বিচারক তথা সুরকার জয় সরকারকেও। টাকা খাওয়ার অভিযোগে বিদ্ধ হন তিনিও৷ এমতাবস্থায় জয় পত্নী লোপামুদ্রা দাঁড়ালেন স্বামীর পাশে, এহেন অভিযোগের ভিত্তিতে সরব হয়ে গায়িকা বললেন, গত ২০ বছর আমি জয় সরকারের মতো একজন আদ্যপান্ত গানবাজনা প্রেমিক মানুষের সঙ্গে থাকি। তাঁকে চিনি হাড়ে-মজ্জায়।’ জয়ের বিরুদ্ধে ‘টাকা খাওয়ার অভিযোগ’ নস্যাৎ করেছেন তিনি।

প্রসঙ্গত এর পরেই, লাইভ এসেই ইমন বলেছেন কারোর পক্ষপাতী হয়ে নয় বর্তমান পরিস্থিতি নিয়েই কিছু বলতে লাইভে আসা। একটা ছেলে প্রথম হয়েছে তার জন্য এতো সমালোচনা কেন? অন্য কেউ প্রথম হলেও কি এভাবেই সমালোচনা হতো? এছাড়াও ইমন বলেন বিচারকের আসনে যারা বসে আছে তারা যথেষ্ট দক্ষ ও গান বাজনার জগতে ভালো নাম রয়েছে তাদের। তাদেরকে নিয়েও এতটা নিচু মানের মন্তব্য করছেন! কতটা নামাচ্ছেন নিজেদের?

বিস্ফোরক হয়ে গায়িকা বলেন, ‘অনেকের মতে আমি নাকি টাকা খাইয়ে অর্কদীপকে জিতিয়েছি। তাদের বলি আমার এতো টাকা নেই, আর আমি নিজের জন্য কোনোদিন টাকা খাওয়াইনি। যদি টাকা খাওয়ানোরই হত তাহলে তাহলে তো আমার টিমের সকলকেই রেখে দিতাম! কেন এই ধরণের বাজে মন্তব্য করছেন! গান শুনতে ভালো না লাগলে শুনবেন না তবে এভাবে আক্রমণ করবেন না।

এরপর গায়িকা আরো বলেন, ‘অর্কদীপকে আমি দীর্ঘদিন ধরেই চিনি। আমাদের গুরু এক, কিন্তু সেটা আলাদা কথা। তার নিজস্ব লড়াইটাও তো রয়েছে! আপনারা ভাবছেন ফাইনালে অর্কদীপ শুধু জিতেছে। কিন্তু আসলে গ্রান্ড ফাইনালের মঞ্চে যে ৬ জন প্রতিযোগী ছিল তারা প্রত্যেকেই বিজেতা। শুধুমাত্র সেদিনের বিচারে ১৯-২০ এর পার্থক্যে জিতেছে অর্কদীপ। আর তাকেই আপনারা এভাবে অপমান করে যাচ্ছেন, তার মনের অবস্থাটাও একবার দেখুন! ১৫ মিনিটের ফেসবুক লাইভের শেষে ইমন বলেন, ‘নতুন যে সমস্ত ছেলেমেয়েরা গান করছে তাদের পাশে দাঁড়ান। শিল্পীদের সন্মান জানান, ভদ্রতা দেখান। দেখবেন সমাজটা আরো অনেক সুন্দর হয়ে উঠবে’।