বিনোদনসিনেমা

কপালে না থাকলে যা হয়! সালমানের ছেড়ে দেওয়া সিনিমাতেই ভাগ্য বদলেছে শাহরুখ আমিরের

বলিউডে এমন অনেক সিনেমা আছে যা ডিরেক্টরদের হাত ধরে প্রথমে সালমান খানের হাতে পৌঁছালেও তিনি রিজেক্ট করে দেওয়ায় পরবর্তীতে তা শাহরুখ, আমিরের হাত ধরে বক্স অফিসে ব্যাপক ব্যাবসা করে। কথায় আছে সময়ের আগে আর ভাগ্যের অতিরিক্ত কেউ কিছু লাভ করতে পারেন না। তাই কপালে না থাকলে অনেক কিছুই পেয়েও হরিয়ে ফেলতে হয়। আজ বং ট্রেন্ডের পাতায় থাকছে সালমান খানের রিজেক্ট করা এমনই কয়েকটি সিনেমা। যা পরবর্তীতে শাহরুখ, আমিরের অভিনয়ে বক্স অফিসে দারুণ হিট হয়।

বাজিগর (Baazigar)

একবার এক সাক্ষাৎকারে সালমান জানিয়েছিলেন শাহরুখের আগেই বাজিগর সিনেমার অফার পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নেগেটিভ চরিত্র হওয়ায় বাবা সেলিম খানের কথায় আব্বাস মস্তান ছবির অফার ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। এরপর শাহরুখ খানকে এই ছবির অফার দেন পরিচালক।

দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে (Dil Wale Dulhaniya Le Jayenge)

শাহরুখ খান Shahrukh Khan কাজল Kajol

এই সিনেমাটি বলিউডের অন্যতম ব্লকবাস্টার সিনেমা যা এখনও সমান জনপ্রিয়। শাহরুখ কাজল অভিনীত এই সিনেমায় অভিনয় করার জন্য শাহরুখের পরিবর্তে প্রথমে অফার গিয়েছিল সালমানের কাছে। কিন্তু তিনি তা রিজেক্ট করে দেন। এই সিনেমাটি আজ অবধি শাহরুখের জীবনের অন্যতম মাইলস্টোন সিনেমা।

গজনী (Gajni)

২০০৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল আমির খানের গজনী। এই সিনেমাটি বলিউডের প্রথম ১০০ কোটির গন্ডি পেরোনো সিনেমা। জানা যায় আমিরের আগে সঞ্জয় সিংহানিয়ার ভূমিকায় অভিনয় করার অফার এসেছিল ভাইজানের কাছে। কিন্তু তা রিজেক্ট করে দিয়েছিলেন।

চাক দে ইন্ডিয়া (Chak De India)

হিন্দি সিনেমা জগতের খেলাধূলা কেন্দ্রিক সিনেমা গুলির মধ্যে অন্যতম চক দে ইন্ডিয়া। এই ছবিটি দর্শকদের পাশাপাশি সমালোচকদের কাছ থেকে প্রশংসা পেয়েছিল। তবে সিনেমার টাইটেল পছন্দ না হওয়ায় প্রথমে এই ছবিটি করতে অস্বীকার করেছিলেন সালমান।

কাল হো না হো (Kal Ho Na Ho)

২০০৩ সালে মুক্ত প্রাপ্ত সিনেমা কাল হো না হো। সে বছরের অন্যতম সুপারহিট ছবি ছিল এটি। বিশেষ করে ছবির গান। জানা যায় এই ছবিতে সাইফ আলি খানের চরিত্রে অভিনয় করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল সালমানকে। কিন্তু তিনি শাহরুখের থেকে কম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করতে চাননি। যার কারণে তিনি এই ছবিটিও রিজেক্ট করে দিয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button