খবরবিনোদন

অভাবে দিন কাটছে টেলিভিশনের প্রথম মহিষাসুরের, খবর পেয়ে সাহায্যের হাত বাড়ালেন সায়নী ঘোষ

বাঙালির সাথে দুর্গাপূজার যোগ শতাব্দী প্রাচীন, আর ছোটবেলা থেকে আজও পুজোর শুরু হয় মহালয়া (Mahalaya) দিয়েই। একসময় রেডিওতে শোনা যেত মহালয়া, তবে পরবর্তীকালে টেলিভিশনে শুরু হয় সম্প্রচার। আর টেলিভিশনের প্রথম মহালয়া বা মহিষাসুরমর্দিনী মহিষাসুর (Mahisasur) ছিলেন অমল চৌধুরী (Amal Chowdhury)। এক মাথা ঝাঁকড়া চুল, ইয়া বড় বড় চোখ, মোটা একখান গোঁফ আর যুদ্ধের পোশাক পরিহিত ভয়ংকর রূপ। এই রূপ দেখে ছোট থেকে বড় সকলেই রীতিমত কেঁপে উঠতেন ভয়ে।

অসুর চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয়ের জেরে  ‘অমল অসুর’ নামেও পরিচিত হয়ে পরেন তিনি। কিন্তু একসময় মহালয়ার মহিষাসুর হলেও বর্তমানে কঠিন আর্থিক পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন অভিনেতা। সম্প্রতি তাঁর এই দুরাবস্থার কথা প্রকাশ্যে উঠে এসেছিল বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের দৌলতে। এমন একজন গুণী শিল্পী হয়েও অভাবের মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে তাকে। এমনকি সরকারি কোনো সাহায্যও তিনি পান না। এবার এই খবর জানতে পেরে সাহায্যের জন্য তৎপর হলেন অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ (Sayani Ghosh)।

Where is Television's First Mahisasur Amal Chowdhury now

অভিনেত্রী হওয়ার পাশাপাশি রাজ‍্য যুব সংগঠনের নেত্রী সায়নী ঘোষ। বিখ্যাত শিল্পীর এই দুর্দিনে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। তাঁর মতে,  রাজ‍্য যুব তৃণমূল কংগ্রেস এবং বারাসত সাংগঠনিক জেলা যূব তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধিরা ইতিমধ্যেই দেখা করেছেন অমল চৌধুরীর সাথে। পুজোর আগেই কিছু উপহার দেওয়া হয়েছে তাকে।

প্রসঙ্গত, আজ প্রায় প্রতিটা বাড়িতেই টেলিভিশন হাজির, ছোট থেকে বড় সকলেই একপ্রকার আসক্ত হয়ে পড়েছেন টিভি নামের বোকাবাক্সের প্রতি। তবে যখন প্রথম মহালয়া টিভিতে সম্প্রচার শুরু হয় তখন ঘরে ঘরে টিভি ছিল না। ভোর বেলা পাড়ার কোনো এক ঘরে টিভির সামনে রুদ্ধ শ্বাস নিয়ে হাজির হতেন সকলে।

টেলিভিশনের পর্দায় প্রথমবার মহিষাসুরমর্দিনী দেবী দূর্গা রূপে দেখা গিয়েছিল অভিনেত্রী সংযুক্ত বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর তাঁর বিপরীতে মহিষাসুর রূপে ছিলেন অমল চৌধুরী। এক মাথা ঝাঁকড়া চুল, ইয়া বড় চোখ, মোটা গোঁফ আর যুদ্ধের পোশাক পরিহিত ভয়ংকর রূপ ছিল টেলিভিশনের প্রথমদিকের মহিষাসুরের।  অসুর চরিত্রে অভিনয়ের দৌলতে ‘অমল অসুর’ নামেও বিখ্যাত হয়ে গিয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু বর্তমান ইন্ডাস্ট্রিতে সেযুগের মহিষাসুরের জায়গা নেই! অভিনেতা বিয়ে করেননি, সংসার বলতে তিনি ও তাঁর বোন। পেটের দায়ে আঁকার টিউশনি করেন অমলবাবু। তাতেই কোনোমতে কষ্ট করে চলছে দুজনের। সময়ের সাথে বয়স হয়েছে ঠিকই, কিন্তু অসুর চরিত্রের বড় বড় চোখ আর মোটা দাড়ি আজও রয়েছে। এখন দেখার অপেক্ষা আগামী দিনে তাঁকে ইন্ডাস্ট্রি যোগ্য সন্মান দিয়ে আবারও ফেরত আনে কি না সেটা দেখার!

Related Articles

Back to top button