বিনোদনসিনেমা

পুত্রবধূ হিসাবে শ্রদ্ধা কাপুরকে মেনে নিলেন রোহানের বাবা রাকেশ শ্রেষ্ঠ, মিলল বিয়ের সম্মতি!

বলিউডের অভিনেত্রী শ্রদ্ধা কাপুর (Sraddha Kapoor)। দীর্ঘদিন ঘরেই প্রেম করেন ফটোগ্রাফের রোহান শ্রেষ্ঠর (Rohan Sresth) সাথে প্রেম করছেন শ্রদ্ধা। দুজনের সম্পর্ক নিয়ে বি টাউনে চর্চার অন্ত নেই। জল্পনা শোনা যাচ্ছিলো খুব শীঘ্রই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে পারেন অভিনেত্রী। এই নিয়ে জল্পনা থেকে শুরু করে শিরোনাম পর্যন্ত হয়ে গিয়েছে। তবে এবার অফিসিয়ালি সত্যি হতে চলেছে শ্রদ্ধা কাপুর ও রোহন শ্রেষ্ঠের  বিয়ে।

শ্রদ্ধা কাপুর Sraddha Kapoor

কিছুদিন আগে বলিউড অভিনেতা বরুন ধাওয়ান ও নাতাশা দালালের বিয়ে হয়েছে। তাদের বিয়ের ছবিতে লাইক দিতেই রোহন ও শ্রদ্ধাকে বিয়ের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন বরুন। আর সেই থেকেই শুরু হয় বলিউডে শ্রদ্ধা ও রোহনের বিয়ের জল্পনা। সম্প্রতি শ্রদ্ধা কাপুর ৩৪ এ পা দিলেন। পরিবারের একটি বিয়ের অনুষ্ঠানের কারণে অভিনেত্রী মলদ্বীপে রয়েছেন। অবশ্যই এক যাননি অভিনেত্রী, সাথে রয়েছে বয়ফ্রেন্ড রোহন শ্রেষ্ঠ।

sraddha kapoor rakesh srestha শ্রদ্ধা কাপুর রাকেশ শ্রেষ্ঠা

মলদ্বীপেই নিজের জন্মদিন পালন করেছেন শ্রদ্ধা কাপুর। কেক কাটার সময় উপস্থিত ছিল রোহন। কেক কাটার পর কমরিয়া গানে কোমর দুলিয়ে শ্রদ্ধার নাচ বেশ ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়াতে। এর সাথে আরো একটি খবর বেশ ভাইরাল হয় শ্রদ্ধার জন্মদিনের দিন। সেটি জন বাবা শক্তি কাপুরের কাছ থেকে একটি গিফট চেয়ে বসেন শ্রদ্ধা। গিফট হিসাবে তাঁকে সিগারেট ছেড়ে দিতে বলেন শ্রদ্ধা। অভিনেত্রীর বাবার থেকে চাওয়া এই গিফট অনেকেরই মন ছুঁয়ে গিয়েছে।

শ্রদ্ধা কাপুর Sraddha Kapoor Shakti Kapoor

এতো গেল জন্মদিনের খবর! এবার আসা যাক আসল ঘটনায়। যেমনটা জানা যাচ্ছে শ্রদ্ধা এবং রোহনের সম্পর্কে অফিসিয়াল সিলমোহর পড়ল বলে। কারণ রোহনের বাবা রাকেশ শ্রেষ্ঠ তাদের সম্পর্ক মেনে নিয়েছেন। সাথে রাকেশজি এও জানিয়েছেন দুজনে বিয়ে করতে চাইলে তিনি খুশি মনেই সেই দায়িত্ব পালন করবেন।

শ্রদ্ধা কাপুর Sraddha Kapoor Rohan Srestha

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে রোহনের বাবা রাকেশ শ্রেষ্ঠের সাথে ছেলে ও শ্রদ্ধার সম্পর্ক নিয়ে প্রশ করা হয়। তখন তিনি বলেন, ‘আমি যত দূর জানি দুজনেই কলেজ থেকে একপরের খুব ভালো বন্ধু। দুজনেই নিজেদের  জীবনে প্রতিষ্ঠিত, কাজও বেশ ভালোই চলছে। দুজন যদি একসাথে থাকার ও বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে সেটা খুবই ভালো সিদ্ধান্ত। ওরা যদি একে অপরকে বিয়ে করতে রাজি থাকে তাহলে আমি খুশি খুশি মেনে নেব’।

Related Articles

Back to top button