গসিপবিনোদন

কিশোরী কালে চাপা গায়ের রঙের জন্য ‘কুৎসিত হাঁস’ বলা হত রেখাকে! কঠোর পরিশ্রমের পর আজ তিনি বলি ডিভা

বলিউডের (Bollywood) সর্বকালের সেরা সুন্দরী অভিনেত্রীর নাম নিতে গেলে তালিকার শুরুতেই যাঁর নাম আসে, তিনি ‘রেখা’ (Rekha)। অভিজাত শাড়ি হোক বা পিঠছাপানো চুল, শান্তগভীর চোখ এবং আকর্ষণীয় ঠোঁট আজও ডাক দেয় বলিপ্রেমীদের। ৬৬ বছর বয়সেও তার নাচ, মুখের এক্সপ্রেশন, চোখের ভাষা হার মানাবে একালের যেকোনো বলি অভিনেত্রীকেও।

আজও তার চাহিদায় বিন্দুমাত্র ভাটা পড়েনি সে কথা বলাই বাহুল্য। বয়স তো তার কাছে কেবলই সংখ্যা মাত্র। পর্দায় তাকে এক ঝলক দেখবার জন্য চাতকের মতো চেয়ে থাকে আট থেকে আশি। তাই তাকে পর্দায় দেখাতে গেলে প্রযোজকদেরও বেশ কসরত করতে হয়।

তবে আজকের এই বলিউড ডিভাই কিশোরী কালে সহ্য করেছেন অসংখ্য অপমান৷ রেখার জীবনের পুরো সাফল্যই তাঁর কঠোর পরিশ্রমের ফলে পাওয়া। আপনি জানলে অবাক হবেন, রেখা তার আসল নাম ও নয়। তার আসল নাম ভানুরেখা গণেশান। তার বাবা জেমিনি গণেশান এবং মা পুষ্পাবালী ছিলেন তামিল অভিনেতা অভিনেত্রী।

শিশু শিল্পী হিসেবে তেলেগু ছবিতে প্রথম দিকে কাজ শুরু করেছেন রেখা। দক্ষিণ ভারতে বেড়ে ওঠায় তিনি হিন্দি বলতে পারতেন না। কিশোরী কালে তিনি বেশ মোটা এবং শ্যামবর্ণা ছিলেন। আর এই কারণেই একসময় বহু কটাক্ষ সইতে হয়েছে অভিনেত্রীকে। এমনকি তাকে কালো হাঁস বলেও ডাকা হত। তবে সেই কটাক্ষ তাকে আরও শক্তি জোগায়।

পরিশ্রম আর কসরতই আজকে তার সৌন্দর্যের কারণ। রাতারাতি তিনি শরীর চর্চা এবং রূপচর্চা শুরু করেন। জাঙ্কফুড, চকোলেট খাওয়া বর্জন করেন অভিনেত্রী। দীর্ঘদিন অনাহারে থেকে নিজের ফিগার তৈরি করেছেন রেখা, দিনের পর দিন খেয়েছেন কেবল এলাচ আর দুধ। আড়াই বছর পরিশ্রম করে নিজের চেহারা এবং রূপ বদলে ফেলেছিলেন রেখা।

Related Articles

Back to top button