বিনোদনভাইরালভিডিও

এক যুবকের ভালোবেসে আনা খাসীর মাংস গালিগালাজ করে জানলা দিয়ে ছুঁড়ে ফেললেন রাণু মন্ডল!

নেটবাসীদের দৌলতেই রাতারাতি স্টার হয়েছিলেন রানাঘাটের রানু মন্ডল (Ranu Mondal)। প্ল্যাটফর্মে বসে খালি গলায় গান ধরেছিলেন তিনি, গায়ে তার নোংরা ছেঁড়া পোশাক, মুখে চোখে ময়লা। কিন্তু তার গান শুনে থমকে দাঁড়িয়েছিলেন এক পথচারী। সেই গান রেকর্ড করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করতেই নিমেষে হয়ে পড়ে ভাইরাল। এর পরেই ঘটে যায় ম্যাজিক।

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে সেই ভিডিও দেখে স্বয়ং হিমেশ রেশমিয়া রানু মন্ডলের সাথে গান বাঁধেন। এরপর হিমেশ সেই প্রতিভাকে পৌঁছে দেন সারা বিশ্বের দরবারে। রানুর সঙ্গে ডুয়েটে তিনি গান ‘তেরি মেরি কাহানি’। আর তার সেই গান আগের বছর দাপিয়ে বেড়িয়েছে সমস্ত পুজো মন্ডপে।

কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই রানু মন্ডলের অবস্থা ফের শোচনীয় হয়ে পড়েছিল। রানাঘাট স্টেশন থেকে শুরু করে আবার তাকে ফিরে যেতে হয়েছিল সেই স্টেশনের ভিক্ষাবৃত্তিতেই। টেনেটুনেই কাটছিল দিন। মুখ ফিরিয়েছিল তার মেয়েরাও। এর একমাত্র কারণ তার আচরণ। কেননা সাফল্য পাওয়ার পরেই অসংখ্য বেফাঁস মন্তব্য করে দেখা গিয়েছে তাকে। আর যার জেরেই সাফল্যের চূড়াতে ওঠার পরেও তার করুণ দশা ফিরে আসতেও বেশি সময় লাগেনি।

প্রথমে পুরোটাই তার অহংকার মনে হলেও পরে জানা যায় রানু দি মানসিকভাবে অসুস্থ। আর তাই-ই সে বিভিন্ন সময় নানান রকমের বেফাঁস মন্তব্য করে বসে। ইদানিং সেই গুলো দেখেই যেন আরও বেশি মজা পায় সোশ্যাল মিডিয়াবাসী৷ অধিকাংশ সময়ই ইউটিউবাররা হাজির হয় তাঁর রানাঘাটের বাড়িতে।

সেখানে রানুকে নানা ভাবে উস্কানিও দেওয়া হয়, এরপর রানু চটলেই তার ভিডিও পোস্ট করে দেওয়া হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়, আর রাতারাতি সেসব ভাইরাল ও হয়ে পড়ে৷ সম্প্রতি একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে, এক যুবক রানু মন্ডলের জন্য কম্বল, পাঁঠার মাংস কিনে অসহায় গায়িকার দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল।

কিন্তু রানু তাতে খুশি নয়, তার প্রশ্ন কোল্ড ড্রিংক্স আনিসনি? যুবকের উত্তর না হতেই রেগে আগুন রানু। ক্যামেরার সামনেই রানু তার আনা অত দামের খাসীর মাংস জানলা দিয়ে ফেলে দেয়। শুধু তাইই নয়, যুবককে বাজে ভাবে অপমান করে চলেও যেতে বলে সে। এই ঘটনায় খুব রেগে যান যুবকটিও, তাই সেও বলে ওঠেন সকলে তাকে নিয়ে যে এতো কুরুচিকর মন্তব্য করেন এবং ট্রোল করেন, তা একেবারেই ঠিক করেন। এই ভিডিও দেখে ছি ছি রব উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়েই।

Related Articles

Back to top button