বিনোদনসিরিয়াল

শেষমেশ কানের ঝাড়বাতি দুল নিয়েও বিতর্ক! ট্রোলের শিকার রান্নাঘরের সুদীপা

বাঙালির প্রিয় রান্নাঘর (Rannaghar) অনুষ্ঠানের সঞ্চালিকা সুদীপা চ্যাটার্জীর (Sudipa Chatterjee)। জী বাংলার (Zee Bangla) পর্দায় রান্নাঘর অনুষ্ঠানের খুবই চেনা হাসিমুখের অভিনেত্রী ভালো নেই! খাদ্যরসিক বাঙালির ভুরিভোজের নানা উপায় দেখিয়ে আপামর বাঙালি দর্শকদের মন ভরিয়ে দেন অভিনেত্রী। রান্নাঘরের সুবাদে সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন সুদীপা। দিনে দিনে অনুগামীর সংখ্যা পেরিয়েছে দেড় লক্ষের গন্ডি।

সোশ্যাল মিডিয়াতে অনুগামীদের উদ্দেশ্যে মাঝে মধ্যেই ছবি থেকে শুরু করে ভিডিও শেয়ার করেন সুদীপা। তবে ইদানিং সোশ্যাল মিডিয়াতে সেলেব্রিটিদের ট্রোলিং আগের তুলনায় অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। ট্রোলিংয়ের হাত থেকে নতুন মুখ হোক বা পুরোনো কেউই বাদ যাচ্ছেন না। আর সম্প্রতি নিজের কিছু ছবি শেয়ার করে নেটিজেনদের ট্রোলের মুখে পড়েছেন অভিনেত্রী।

আসলে নিজের কানের দুল পরা কিছু ছবি শেয়ার করেছেন সুদীপা। সাথে কানের দলের সাথে জড়িয়ে থাকা এক স্মৃতি ভাগ করে নিয়েছেন অভিনেত্রী। এখানেই বেঁধেছে আপত্তি। ছবি শেয়ার করে সুদীপা লিখেছেন, ‘এই “ঝাড়বাতি” দুলটা প্রথম দেখেছিলুম- নির্মলাদির(মিশ্র) কানে। এত পছন্দ হয়েছিলো,যে নির্মলাদি তা টের পেয়ে,আমাকে নিজের কান থেকে খুলে দিয়ে দিয়েছিলেন। ওঁরা এরকমই মানুষ। তবে,আমি জানতুম- ওটি ওনার খুবই প্রিয় দুল। তাই,ফেরত দিয়ে বলেছিলুম- “এর সঙ্গে যে আদর আর আশীর্বাদ ছিলো- সেটুকুই আমার। বাকিটা তোমার। আশীর্বাদ করো,যেন এমনই একটা দুল আমার হয় একদিন। যখনই পরবো- তোমার কথা মনে পড়বে।”

রান্নাঘর সুদিপা চ্যাটার্জী Rannaghar Sudipa Chatterjee trolled for earrings

এরপর সুদীপা আরো লিখেছেন, সেই দুল আমার বান্ধবী ‘শ্রী’ বানিয়েছে। এতদিন পর এই ঝাড়বাতি কানের দুল পরে মন ভোরে গিয়েছে অভিনেত্রীর। লেখার শেষে সোনার দোকানের প্রতি ধন্যবাদও জানিয়েছে তিনি। এতটুকু ঠিকই ছিল। এরপর এক নেটিজেন অভিনেত্রীকে প্রশ্ন করেন, ‘ কানের দুলটা কি সোনার? যার উত্তরে অভিনেত্রী বলেছেন, ‘আমি ইমিটিশন ছাড়া কানের পরি না। এরপরেই আসতে শুরু হয় নানা ধরণের কেউ মন্তব্য।

আসলে এর আগেও অভিনেত্রীকে শাড়ি নিয়ে ট্রোলের শিকার হতে হয়েছিল। নেটিজেনদের কিছু লোকের মতে সুদীপা অহংকারী তাই এই ধরণের পোস্ট করেন। তবে, অভিনেত্রীর মতে এই ধরণের লোকেরা সবাইকেই ট্রোল করছে। আর সেলেব্রিটিদের তো বিশেষ করে ট্রোলিংয়ের শিকার হতে হচ্ছে। তাই এই ধরণের লোকেদের পাত্তা না দেওয়াটাই ভালো। তবে ছবিতে অল্প কিছু বাজে মন্তব্য থাকলেও ভালো মন্তব্য রয়েছে অসংখ্য। অনেকেই অভিনেত্রীর কানের দলের প্রশংসায়  ভরিয়ে দিয়েছেন কমেন্ট বক্স।

Related Articles

Back to top button