বিনোদনভিডিওসিনেমা

স্বামী গায়ে হাত তুললেও, টাকা তো দেয়! গার্হস্থ্য হিংসার বিরুদ্ধে সরব হলেন সৃজিত পত্নী মিথিলা

ফের একবার সোশ্যাল মিডিয়ায় ধরা দিল পরিচালক সৃজিত মুখার্জীর (Srijit Mukherjee) স্ত্রী তথা অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলার (Rafiath Rashid Mithila) প্রতিবাদী রুপ। দুঃখের বিষয় আজকের ২১ শতকের যুগেও তথা কথিত পুরুষতান্ত্রিক সমাজে দিনে দিনে দিনে বেড়ে চলেছে গার্হস্থ্য হিংসা(Domestic Violence), পারিবারিক কলহ। যার একমাত্র দায় এসে পড়ে সেই বাড়ির মেয়ে-বৌদের ওপর।

আর দুর্ভাগ্যবশত দেখা যায় কেউ কেউ মেয়ে হয়েও মেয়েদের কষ্ট তো বোঝেই না, উল্টে গার্হস্থ্য হিংসার শিকার একটা মেয়েকে ঘুরে দাঁড়ানোর পরিবর্তে হয় উল্টে তাকে দোষ দিতে শুরু করে কিংবা মানিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দেন। সম্প্রতি আমাদের সমাজে প্রচলিত এমনই বেশ কিছু ধারণার বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন বাংলাদেশী অভিনেত্রী মিথিলা।

এপ্রসঙ্গে এদিন প্রথমেই মিথিলা বলেন ‘ছোটোবেলা থেকে আমরা এমন কিছু কথা শুনেছি যা পারিবারিক নির্যাতনকে আমাদের সমাজে স্বাভাবিক করে তুলেছে।’ যেমন ‘মেয়েদের কন্ট্রোল করতে হয়’। ‘বাসর রাতে বিড়াল মারো’ ‘মেয়েদের মানিয়ে নিতেই হয়’। কিংবা ‘রাত করে বাড়ি ফিরলে তো মার খাবেই!’ অথবা ‘স্বামীর রাগই তো ভালবাসা।‘ এও শুনতে হয় ‘কী, গায়ে হাত তোলে? একটা থাপ্পড়ে কী হয়! টাকা-পয়সা তো দেয়।’ এমন অনুচিত নানান কথা।

মেয়েদের হয়ে মুখ খুলে একের পর এক এমনই কয়েকটি প্রচলিত কথা বলেছেন মিথিলা। যা আজও বেশিরভাগ মেয়েদের জীবনেই বাস্তব সত্যি। এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনই একটি সচেতনতামূলক ভিডিও শেয়ার করে অভিনেত্রী বোঝাতে চেয়েছেন জ্ঞান হওয়া থেকে এই কথাগুলো শুনতে শুনতে সকলের কাছেই একপ্রকার ‘অভ্যেস’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যা বদলানো প্রয়োজন।

 

তাই এমন চিন্তাধারা বদলাতে সমাজের সকলকে গার্হস্থ্য হিংসার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ডাক দিয়েছেন মিথিলা। অভিনেত্রীর কথায় ‘এই সব কথা আমাদের সমাজে পারিবারিক নির্যাতনকে আরও যেন স্বাভাবিক করে তুলছে। আমি এই ধরনের সমস্ত কথা বর্জন করছি।’ পাশাপাশি কেউ যদি নিজেদের আশেপাশে এই ধরনের ঘটনা দেখে থাকেন তাহলে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করার আবেদন জানিয়েছে মিথিলা।

Related Articles

Back to top button