লাফিয়ে বাড়ছে করোনা! এই অবস্থায় কুম্ভমেলা থেকে ফিরলেই বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন


দেশে ফের ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। কোরোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ইতিমধ্যেই লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা।
অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি দিল্লিতে ক্রমেই বাড়ছে করোনা উদ্বেগ। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীতে করোনার কবলে পড়েছেন ২৪ হাজার ৩৭৫ বজন। এদিকে করোনা উদ্বেগের মধ্যেই ভারতে নতুন করে চিন্তা বাড়াচ্ছে হরিদ্বারে কুম্ভমেলা। যার জেরে রাজ্যে রাজ্যে ব্যাপক হারে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। উদ্বেগ বাড়ছে দিল্লিতেও। এবার কুম্ভমেলার হাত ধরে রাজ্যে নতুন করে সংক্রমণ ঠেকাতে অভিনব উদ্যোগ নিল কেজরিওয়াল প্রশাসন।

কুম্ভ মেলা থেকে ফিরলেই এবার ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন বাধ্যতামূলক করল দিল্লি সরকার। দেশজুড়ে করোনা যে হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে সেই কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রবিবার এই নয়া নির্দেশ জারি করেছে দিল্লি সরকার। একইসাথে ৪ এপ্রিল থেকে এখনও পর্যন্ত যারা কুম্ভ মেলায় গিয়েছেন তাঁদের দিল্লি সরকারের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে বলা হয়েছে দিল্লি প্রশাসনের তরফে। এমনকী সরকারি নির্দেশ অমান্য করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও সরকারের তরফে হুশিারি দেওয়া হয়েছে। তবে শুধু দিল্লি নয়। এই নির্দেশিকা জারি হয়েছে গুজরাট, মহারাষ্ট্র, মধ্য প্রদেশ, ওড়িশা সহ একাধিক রাজ্যেও।

এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে কুম্ভ মেলাকে প্রতীকী করার আবেদন জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এবার তার আবেদনে সাড়া দিতে শুরু করেছেন সাধু-সন্তরা। ইতিমধ্যেই করোনা সংক্রমণের সংখ্যা যেভাবে প্রতিদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে তার দিকে তাকিয়েই জুনা আখাড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা আর কুম্ভ মেলায় অংশ নেবে না। বাকী একাধিক আখড়াও মেলা থেকে সরে দাঁড়াতে পারে বলে খবর। এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীতে এক ধাক্কায় যেমন নতুন সংক্রমণ বেড়েছে তেমনই বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় দিল্লিতে করোনার কবলে পড়ে মারা গিয়েছেন ১৬৭ জন।