ওয়েব সিরিজবিনোদনসিরিয়াল

মৃত্যুর পরেও শান্তি নেই সিদ্ধার্থের পরিবারের! মিডিয়ার বাড়াবাড়ি দেখে বড় সিদ্ধান্ত নিলেন পূজা

গত বছরের ১৪ই জুন বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু তোলপাড় করে দিয়েছিল গোটা দেশ। দিনরাত মিডিয়া প্যানেল থেকে শুরু করে চায়ের ঠেক সব জায়গায় একটাই চর্চা। তা হল সুশান্তের মৃত্যু আত্মহত্যা নাকি খুন! বছর ঘুরতে না ঘুরতেই ফের এক জনপ্রিয় অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার অকাল মৃত্যু। যা বারে বারে উস্কে দিয়ে যাচ্ছে এক বছর আগে ঘটে যাওয়া মৃত্যু শোক।

ময়না তদন্তের রিপোর্টে সুশান্তের মৃত্যুর কারণ লেখা ছিল আত্মহত্যা, আর সিদ্ধার্থ শুক্লার মৃত্যু হয়েছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে। তাই এমন শোকের আবহের মধ্যেও কেউ কেউ জোর করে তুলনা টানছে সুশান্তের মৃত্যুর সাথে। ঘুমের মধ্যে চির নিদ্রায় চলে গিয়েছেন অভিনেতা। সিদ্ধার্থের পরিবারের তরফেও জানানো হয়েছে তাঁর মৃত্যু একেবারেই আকস্মিক।

সিদ্ধার্থের মৃত্যুর খবরে ভাষা হারিয়েছেন তাঁর পরিবারের পাশাপাশি অসংখ্য কাছের মানুষ। দুঃসংবাদ পাওয়ার পর থেকেই বারবার তাঁরা আঁতকে উঠেছেন সিদ্ধার্থের মা রীতা শুক্লা এবং প্রেমিকা শেহনাজ গিলের মনের অবস্থা ভেবে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে সবকিছু এত তাড়াতাড়ি ঘটে চলেছে যে গোটা বিষয়টাই এখনও পর্যন্ত পুরোপুরি বুঝে উঠতে পারছেন না তাঁরা।

এই শোক বিহ্বল অবস্থাতেও মিডিয়ার ক্যামেরা থেকে নিস্তার নেই সিদ্ধার্থের পরিবারের। যা দেখে চিরঘুমের দেশ থেকে সিদ্ধার্থও হয়তো বলছেন ‘মরেও শান্তি নেই’। আজই শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে অভিনেতার। সেসময় সিদ্ধার্থের মা গাড়ি থেকে নামতেই তাঁকে ছেঁকে ধরে হাজার হাজার ক্যামেরা। মিডিয়ার এমন অমানবিক আচরণ দেখে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন বাঙালি অভিনেত্রী পূজা ব্যানার্জী।

বারবার সংবাদমাধ্যমের এমন অমানবিক আচরণ দেখে ভীষণ বিরক্ত পূজা। তাই ইনস্টাগ্রামে অভিনেত্রী জানিয়েছেন চোখের সামনে এসব অমানবিক দৃশ্য তিনি আর দেখতে পারছেন না তাই আপাতত কিছু দিনের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া থেকে সাময়িক বিরতি নিচ্ছেন তিনি। পাশাপাশি এদিন ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে জানিয়েছেন সেলিব্রেটি হওয়ার অর্থাৎ জনগণের সম্পত্তি নয়। তাই মিডিয়ার কাছে তিনি অনুরোধ করেছেন তাঁর মৃত্যু হলে তাঁর পরিবার পরিজনদের যেন এভাবে হেনস্থা না করা হয়। সেইসাথে সিদ্ধার্থের মা এবং শেহনাজের জন্য প্রার্থনা করেছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button