বিনোদনসিরিয়াল

চাকরি ছাড়বে না পর্না, ‘নিম ফুলের মধু’ জমজমাট! ডাকাত সায়েস্তার গল্প শোনালেন ঠাম্মি

একসময় একাই দত্ত বাড়িকে ডাকাতের হাত থেকে উদ্ধার করেছিল ঠাম্মি, গল্প শুনে অবাক পর্না

জি বাংলার পর্দায় শুরু হওয়া একেবারে ব্র্যান্ড নিউ বাংলা সিরিয়াল হল ‘নিম ফুলের মধু’ (Neem Phooler Madhu)। জনপ্রিয় এই মেগা সিরিয়ালে দত্ত বাড়ির বৌমা অর্থাৎ নায়িকা পর্ণা (Parna) চরিত্রে অভিনয় করছেন জনপ্রিয় টেলি অভিনেত্রী পল্লবী শর্মা (Pallavi Sharma)। তাঁর বিপরীতে নায়ক সৃজনের ভূমিকায় অভিনয় করছেন টেলি অভিনেতা রুবেল দাস (Rubel Das)।

এমনিতে টেলিভিশনের পর্দায় এই ধারাবাহিকের বয়স বেশিদিন নয়। এরইমধ্যে দর্শকমহলে বেশ পাকাপাকিভাবে জায়গা করে নিয়েছে এই সিরিয়াল। এরইমধ্যে দর্শকমহলে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ধারাবাহিকের নায়িকা পর্ণা। যার ফলে বোঝাই যাচ্ছে এই সিরিয়ালের হাত ধরেই ধীরে ধীরে পর্দার জবা থেকে পর্ণা হয়ে উঠেছেন পল্লবী।

Parna Srijan Nim Phuler Modhu

আর এবারেও তার সাবলীল অভিনয় ইতিমধ্যেই ছাপ ফেলেছে দর্শকমহলে। শাশুড়ি কৃষ্ণার কাছে পদে পদে বাধা পেয়েও পর্ণা যেভাবে খারাপের মধ্যেও ভালো খুঁজে নিচ্ছে তাতে বেজায় খুশি দর্শক। সিরিয়ালের ট্যাগলাইনের মতোই গল্পেও ধীরে ধীরে তেতো টুকু পেরিয়ে মিঠের হদিস পাচ্ছেন ‘নিম ফুলের মধু’ সিরিয়ালের দর্শক।

বাংলা সিরিয়াল,Bengali Serial,নিম ফুলের মধু,Nim Phuler Madhu,পর্ণা,Parna,সৃজন,Srijon,ঠাম্মি,Thammi,হেমনলিনী,Hemnalini,বাবুর মা,Babur Maa

প্রসঙ্গত সিরিয়ালটি যারা রোজ দেখেন তারা জানেন দত্তবাড়িতে যেমন  বাবুর মা অর্থাৎ পর্ণার শাশুড়ির মতো বাধা সৃষ্টিকারী মানুষ আছেন তেমনই আছেন ঠাম্মি অর্থাৎ হেমনলিনী দেবীর মতো বিচক্ষণ মানুষও। তিনি একমাত্র ভরসা পর্ণার। আর ঠাম্মিও চোখে হারান তাঁর পর্ণা দিদিভাইকে। তাই তাঁর সাহসী সাংবাদিকতার জেরে যখন গোটা দত্তবাড়ির ওপর বিপদ ঘনিয়ে আসে বিশেষ করে সরস্বতী পুজোর দিন যেভাবে ঠাম্মির পায়ের কাছে তাজা বোমা এসে পড়েছিল তাতে খুব ভয় পেয়ে গিয়েছিল পর্ণা।

Nim Phuler Modhu Parna Thammi

তাছাড়া শশুড়বাড়ির সকলের অপমান তো আছেই। তাই আর দু’বার না ভেবে চাকরিটাই ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পর্ণা। সেইমতো সকালে বাগচী বাবু আসতেই তাকে ইস্তফা দিয়ে দেয় সে। কিন্তু তখনই দেবদূতের মতো এসে চিঠিটাই ছিঁড়ে দেয় ঠাম্মি। আর ঘরে গিয়ে পর্ণাকে নিজের অল্প বয়সের সাহসিকতার গল্প শুনিয়ে জানান  সেসময় রাতের অন্ধকারে তিনি নিজে কিভাবে একহাতে বন্দুক নিয়ে ডাকাতদের তাড়িয়ে দিয়েছিলেন দত্তবাড়ি থেকে।

Back to top button