বেইমানি হচ্ছে শঙ্খ-মোহরের সাথে! প্রতিবাদে বাকি সিরিয়াল বয়কটের ডাক দিল ক্ষুদ্ধ বাঙালি দর্শকগণ


বাঙালির সন্ধ্যে মানেই সিরিয়াল। আর বাংলার এক জনপ্রিয় সিরিয়াল হল মোহর (Mohar)। শঙ্খ আর মোহর (Shankha Mohar) এই নাম দুটো বেশ পরিচিতএই সিরিয়ালের দৌলতে। বাঙালিরা ঘরে সন্ধ্যা নামলেই সকলেই চলে আসেন টিভি পর্দার সামনে। সেখানে মোহর সিরিয়াল শুরুর জন্য অপেক্ষা করেন দর্শকেরা। সিরিয়ালে হাজারো সংগ্রামের পর এক হয়েছে শঙ্খ ও মোহর। তবে সিরিয়ালে এক হলেও বর্তমানে মোহর ও শঙ্খ স্যারের প্রতি হচ্ছে অবিচার।

ভাবছেন কিসের অবিচার! আসলে পাল্টে যাচ্ছে ‘মোহর’ সিরিয়ালের সময়। সন্ধ্যেবেলার বদলে এবার থেকে দুপুর ২টো দেখতে পাওয়া যাবে মোহরকে। কিন্তু ষ্টার জলসা চ্যানেলের এই সিদ্ধান্তকে মোটেও মেনে নিতে পারছেন না দর্শকেরা। ‘মোহর’ সিরিয়াল প্রেমীদের মতে এটা বেইমানি করা হচ্ছে সিরিয়ালটির প্রতি। একসময় বেশ ভালো চাহিদা ছিল মোহর সিরিয়ালের। সেই সময় টিআরপি এর দিক থেকেই বাকি সেরিয়ালদের বেশ চাপে ফেলে দিত মোহর। কিন্তু ইদানিং সিরিয়ালের জনপ্রিয়তা কমেগেছে বেশ কিছুটা।

এই কারণেই হয়তো এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চ্যানেল কর্তৃপক্ষ। টিআরপির দিক থেকে পিছিয়ে পড়ছে মোহর, তাই সন্ধ্যের সময় বদল হচ্ছে সিরিয়ালের। বদলে আসছে নতুন সিরিয়াল ‘বরণ’। কিন্তু যারা মোহরকে সন্ধেবেলায় টিভির পর্দায় দেখে অভ্যস্ত তারা এই সিদ্ধান্তে বেজায় চটে গিয়েছেন। মোহরের প্রতি হওয়া এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে সুবিচার চাইছেন দর্শকদের একাংশ। ষ্টার জলসার ফেসবুক পেজে #justicefor Mohor নামের হ্যাশট্যাগ ছেয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যেই। এমনকি ইনস্টাগ্রামেও ট্রেন্ডিং হচ্ছে এই একই হ্যাশট্যাগ।

Mohor Serial Time Slot changed

কিছু ক্ষুদ্ধ দর্শক অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে মোহরের পরিবর্তিত সময় শেয়ার করা হলে সেই পোস্টেই মন্তব্য করেছেন। নেটিজেনদের এক জনের মতে, ‘ষ্টার জলসার মত বেইমান আর অকৃতজ্ঞ চ্যানেল আমি একটাও দেখিনি। যোগ্য কে তাঁর প্রাপ্য সন্মান দেয় না। লজ্জা হওয়া উচিত!’

Mohor Serial Time Slot changed

এছাড়াও কিছু দর্শক ষ্টার জলসা বয়কটের ডাক দিচ্ছেন। এক নেটিজেনের মতে, ‘দুপুর দুটোয় মোহর দেখে আর যেন স্টার জলসা না খোলা হয়। সেটা আমার অবশ্যই করে দেখবো’। ওই নেটিজনের মন্তব্যকে সমর্থনও জানিয়েছেন বেশ কিছু ফেসবুক ব্যবহারকারী।

Mohor Serial Time Slot changed