বিনোদনসিনেমা

প্রেম করে বিয়ের পর ‘লাথি মেরে’ বাড়ি থেকে তাড়িয়েছেন স্বামীকে! যোগিতাকে নিয়ে বিস্ফোরক মিঠুন চক্রবর্তী

বড়দিনের আগেই ডিসেম্বরের শহরে সবে উড়তে শুরু করেছে প্রজাপতি। গতকালই প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে দেব অধিকারী (Deb Adhikary) এবং মিঠুন চক্রবর্তী (Mithun Chakraborty) অভিনীত সিনেমা প্রজাপতি (Projapati)। ইদানিং এই সিনেমারই  প্রমোশনের কাজে তুমুল ব্যস্ত দেব, মিঠুন দুজনেই। দীর্ঘ ৭ বছর পর টিভির পর্দায় আরও একবার বাবা ছেলের চরিত্র নিয়ে ফিরছেন বাংলার এই দুই জনপ্রিয় সুপারস্টার। সিনেমায় মিঠুন হয়েছেন দেবের বাবা। প্রাপ্তবয়স্ক যুবক সেই ছেলেকে বিয়ে (Marriage) দেওয়ার জন্য সারাক্ষণ ব্যতিব্যস্ত পর্দার মিঠুন।

তবে শুধু পর্দায় নয় বাস্তবেও কিন্তু বিয়ের নাম শুনলেই শত হস্ত দূরে পালান অভিনেতা। সম্প্রতি দেবের দীর্ঘদিনের প্রেমিকা তথা অভিনেত্রী রুক্মিণী মৈত্রও মিঠুনের কাছে দেবের এই স্বভাব নিয়ে অভিযোগ জানিয়েছিলেন। দেবের বিয়ে নিয়ে তাঁর বাড়ির লোক তো বটেই মিঠুনও বলে,বলে হয়রান। তবে সম্প্রতি এ প্রসঙ্গে মিঠুন জানিয়েছেন সিনেমাটা মুক্তি পেলেই তিনি লাঠি নিয়েদেবের পিছনে পড়ে যাবেন।

মিঠুন চক্রবর্তী,Mithun Chakraborty,বিয়ে,Marriage,যোগিতা বালি,Yogita Bali,দেব অধিকারী,Deb Adhikary,প্রজাপতি.Projapati,বাংলা সিনেমা,Bengali Cinema

মিঠুনের কথায় স্টারডম চলে যাওয়ার ভয়েই নাকি দেব বিয়ে করতে ভয় পায়। এ প্রসঙ্গে দেবের উদ্দেশ্যে  মিঠুনের পরামর্শ ‘আমাকে দেখ আমি তো বিয়ের পর স্টার হয়েছি’। কিন্তু এদিন মিঠুনের কথা থেকে মোটামুটি নিশ্চিত বউয়ের হাত থেকে নিস্তার নেই কারও। স্বয়ং বলিউডের ডিস্কো কিং মিঠুন চক্রবর্তীকেও নাকি তিনবার লাথি মেরে বাড়ি থেকে বার করে দিয়েছিলেন তার স্ত্রী যোগিতা বালি।

Mithun Chakraborty speaking

সেই সময় দেশের অন্যতম জনপ্রিয় তারকা মিঠুন। গোটা দেশ চেনে তাকে। কিন্তু হঠাৎ কি এমন হয়েছিল যার জন্য বউয়ের কাছে লাথি খেয়ে বাড়ি থেকে বের হতে হয়েছিল মিঠুনকে। সেকথা জানিয়েই এদিন মিঠুন নিজের মুখে জানান বিয়ের পর তিনবার তার  বউ তাঁকে ‘লাথি মেরে’ বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছে। তবে পরক্ষণেই নিজেকে শুধরে অভিনেতা বলেন, ‘লাথি মেরে মানে বাড়ির বাইরে বের করে দিয়েছিল।’

কিন্তু তখন তিনি কোথায়গিয়ে উঠবেন সেসব কিছু বুঝতে না পেরে সামনেই এক বাস স্ট্যান্ডে গিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। কিন্তুন তখন বেশ ভালোই নামডাক হয়েছে মিঠুনের। তাই লোকজন তাকে চিনতে পারলেও এগিয়ে এসে তার পরিচয় জানার সাহস পাননি। তবে শেষপর্যন্ত সেদিন নাকি যোগিতা বালি নিজে গিয়েই ফিরিয়ে এনেছিলেন মিঠুনকে।

Related Articles

Back to top button