বিনোদনসিনেমা

বিয়ের কথা দিয়েও রাখতে পারেনি বিক্রম, তবুও অবিবাহিত ডিম্পল! এই কাহিনী মন ছুঁয়েছে কিয়ারার

প্রায় একসপ্তাহ হতে চলল ওটিটি প্লাটফর্ম অ্যামাজন প্রাইম ভিডিওতে মুক্তি পেয়েছে কার্গিল যুদ্ধেশহীদ ভারতীয় সেনা বিক্রম বাত্রার (Bikram Batra) বায়েপিক ‘শেরশাহ’ (Shershah)। পরিচালক বিষ্ণু বর্ধনের এই ছবিতে ক্যাপ্টেন বিক্রম বত্রার চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেতা সিদ্ধার্থ মালহোত্রা (Sidharth Malhotra) এবং বাগদত্তা ডিম্পল চিমার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কিয়ারা আডবাণী (Kiyara Advani)। উল্লেখ্য এর আগেও টিভির পর্দায় এলওসি কার্গিল ছবিতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল ক্যাপ্টেন বিক্রম বাত্রার ছবি

সেবার ক্যাপ্টেন বিক্রমের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন অভিষেক বচ্চন। তবে পরিচালক বিষ্ণু বর্ধন ‘শেরশাহ’ সিনেমাকে শুধুমাত্র দেশাত্মবোধক সিনেমার আঙ্গিকেই মুড়ে রাখেননি। পরিচালকের মুন্সিয়ানায় দেশাত্মবোধ ছাড়াও ক্যাপ্টেন বিক্রম বাত্রার সঙ্গে ডিম্পল চিমার প্রেমপর্বের কাহিনি এই ছবির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আর তাই এই ছবিতে সিদ্ধার্থ কিয়ারার রসায়ন ইতিমধ্যেই মন ছুঁয়েছে দর্শকদের।

Sidharth malhotra Kiara Advani in Sher Shah Movie

উল্লেখ্য ৯০ দশকে কলেজ থেকে শুরু ড়য় বিক্রম এবং ডিম্পেলের প্রেমকাহিনী। বিয়ের তারিখও পাকা হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু আচমকা কার্গিল যুদ্ধ এসে পড়ায় ডিম্পলের জীবন থেকে চিরতরে চলে যায় তাঁর জীবনের সবচেয়ে বড় আশ্রয়স্থল বিক্রম বাত্রা।দেশকে সন্ত্রাসবাদীদের হাত থেকে রক্ষা করার যুদ্ধক্ষেত্রে কোন বুলেটে কার মৃত্যু লেখা থাকে কেউ জানে না। তেমনই কার্গিল যুদ্ধে ভারতীয় ভূখন্ডে দেশের পতাকা উড়াতে গিয়ে নিজেকে পতাকায় মুড়ে বাড়ি ফিরেছিলেন শহীদ ক্যাপ্টেন বিক্রম বাত্রা।

Kiara Advani Likes Vikram Batra and Dimple Cheema Love Story

বিক্রমের মৃত্যুর পর বাস্তব জীবনেও গত ২২ বছরে অবিবাহিতই থেকেছেন ডিম্পল, পরিবারের সদস্যরা এমনকি বিক্রমের বাবা-মা’র শত আবদারও নিজের সিদ্ধান্ত বদল আনেননি তিনি। সারাজীবন বিক্রমের বিধবা তথা অবিবাহিতা থেকে যাওয়ার এই বিষয়টাই বেশ মন ছুঁয়েছে অনস্ক্রিন ডিম্পল অর্থাৎ অভিনেত্রী কিয়ারা আডবানীর।

এপ্রসঙ্গে সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে টিয়ারা জানিয়েছেন ‘উনি নিজের জন্য এই জীবনটা বেছে নিয়েছেন, এবং উনি এটা ভেবেই খুশি রয়েছেন বিক্রম ওঁনার আশেপাশেই আছে, ওঁনার স্মৃতিতে ক্যাপ্টেন বিক্রম বত্রা অমর। ওঁনার এই বিষয়টা আপনাকে ভাবাবে। একবার আমি মুখ ফসকে বলে ফেলেছিলাম, অনেক বছর তো কেটে গেল। তখন উনি আমাকে পালটা বলেছিলেন ‘সেটা জরুরি নয়, আমি ওর উপর একটু রেগে আছি এটা ঠিক, কিন্তু যেদিন দেখা হবে সেদিন সব মনোমালিন্য একসঙ্গে বসে মিটিয়ে নেবো। আমি জানি ঠিক দেখা হবে।

Related Articles

Back to top button