গসিপবিনোদনসিরিয়াল

দর্শকদের থেকে একাধিক বিয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলেন খড়কুটোর ‘পটকা’ অভিনেতা অম্বরীশ!

সিরিয়াল প্রিয় বাঙালির প্রিয় সিরিয়ালের (Serial) তালিকা বেশ লম্বা। তবে কিছু সিরিয়াল এমন রয়েছে যেগুলো মানুষের মনে আজ একটা আলাদা জায়গা করে রেখেছে। সিরিয়াল মানেই যেখানে সাংসারিক কূটকচালি, কারোর দুটো বর তো কারোর দুটো বউ সেখানে ‘রাজা গজা’ সিরিয়াল ছিল একেবারেই আলাদা। ‘রাজা গজা’-র সেই মিষ্টি চরিত্রের অভিনেতা হলেন অম্বরীশ ভট্টাচার্য (Ambarish Bhattacharya)। বর্তমানে অভিনেতা খড়কুটো (Khorkuto) সিরিয়ালে পটকার (Potka) চরিত্রে অভিনয়ে করছেন।

খড়কুটো সিরিয়ালে তার অভিনয় বরাবরই নজর কেড়েছে দর্শকদের। তবে জানলে হয়তো অবাক হবেন অভিনয়ের প্রতি কোনো টানই ছিল না অম্বরীশের। এমনকি জীবনে কি হতে চান সেটাও ঠিক ছিল না। হাতে একাধিক সিনেমা থেকে শুরু করে সিরিয়াল থাকলেও খুব কমই কাজ করেছেন অভিনেতা। আসলে একটু অলস গোছের অম্বরীশ। সে কথা তিনি নিজেও স্বীকার করেন বটে।

তবে খড়কুটো সিরিয়ালে পটকা চরিত্রে তাঁর অনবদ্য অভিনয় যেন সিরিয়ালটিকে আরো প্রাণবন্ত করে তুলেছে। খড়কুটো ছাড়াও আরো একটি সিরিয়ালে দেখা গিয়েছে তাঁকে। জি বাংলার ‘শ্রীময়ী’ সিরিয়ালেও অভিনয় করেছেন অম্বরীশ। তবে লকডাউনে বেশ কিছুদিন বন্ধ ছিল শুটিং, যে কারণে বাড়ি থেকেই শুটিং করছিলেন। সম্প্রতি নিজের লকডাউনের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন অভিনেতা।

তার মতে ঘরবন্দি হলেও কাজ কিন্তু ঠিকঠাকই চলছে। শুটিং বাদে বাকি সময় ঘরের নানান কাজ করতে করতেই সময় কেটে যাচ্ছে। তাছাড়া গান শোনা আর বইপড়া তো আছেই। এরপর অভিনেতাকে বিয়ের প্রশ্ন করলে মিলেছে দারুন উত্তর। বিয়ের প্রশ্নে অভিনেতা জানান এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া খুবই কঠিন। কারণ বিয়েটা ঠিক কখন করবো সেটা বলতে পারছি না। কালকেও করতে পারি আবার দশ বছর পরেও করতে পারি।

অভিনেতার মতে, ‘বিয়েটা আসলে শুধু বিয়ে নয়, অনেক কিছু ব্যাপার রয়েছে যেটা বিয়ের আগে বুঝতে হয়। আমি আদৌ সংসার করতে পারবো কি না! যে আসবে তার দায়িত্ব নেবার জন্য আমি প্রস্তুত কিনা এমন অনেক বিষয় রয়েছে। আমি নিজের মত চলতে ভালোবাসি, তাই মনের মত কাউকে পেলে ইচ্ছা হলেই বিয়ে করব’। এর সাথে অভিনেতা আরো বলেন যে ইতিমধ্যেই অনুরাগীদের থেকেও বেশ কয়েকবার বিয়ের প্রস্তাব পেয়েছেন তিনি।

এরপর করোনা আর লকডাউনে মানসিক পরিস্থিতির কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ করোনা আমাদের কোণঠাসা করে দিয়েছে। অবশ্য এটাই হবার ছিল, কারণ ভাইরাসেরা বুঝিয়ে দিতে চাইছে তারাও শক্তিশালী। তবে ইতিহাস দেখলে বোঝা যাবে কোনো ভাইরাসই চিরকালের জন্য থাকে না তাই  এটাও কেটে যাবে ঠিকই। তবে নিজেদের আরো অনেক সচেতন রাখতে সচেষ্ট হতে হবে।

Related Articles

Back to top button