এমনি রোগা কিন্তু পিছনটা বেশ বড়! ১২ বছর বয়স থেকে ‘বডি শেমিং’ এর শিকার ইলিয়ানা


বয়ঃসন্ধি কাল অথবা যৌবনে শরীর নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য শোনেননি এমন নারী বোধহয় হাতে গোনা। আসলে আমাদের সমাজটাই এমন। তারকা হোক বা সাধারণ মেয়ে ‘বডি শেমিং’ এর শিকার কমবেশি সকলেই। আর এই ‘সামাজিক অসুখ’ থেকে নিস্তার পাননি বলিউডের মিষ্টি অভিনেত্রী ইলিয়ানা ডি’ক্রুজ-ও।

আজ তিনি সফল অভিনেত্রী। কিন্তু শৈশবের সেসব অন্ধকার দিনের স্মৃতি আজও তার মননে তাজা। ইলিয়ানা জানান, ১২ বছর বয়স থেকেই একাধিকবার বডি শেমিং -এর শিকার হয়েছেন তিনি। ছোটবেলায় একটু বেশি রোগা-পাতলা ছিলেন ইলিয়ানা ডি’ক্রুজ। এ জন্য হাজারো ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ সহ্য করতে হয়েছে তাকে, এমনকি তার নিতম্বের আকার নিয়েও বলা হয়েছে কটু কথা।

ileana D’Cruz  ইলিয়ানা ডি'ক্রুজ,

তবে সময়ের সাথে সাথে শক্ত হতে শিখে গিয়েছেন ইলিয়ানা। পেয়েছেন মনের জোর। সঙ্গে অভিনেত্রী আরও বলেন,’ যে যা বলছে বলুক,পাত্তা দিই না’ ধরণের মনোভাব মুখে বলা যতটা সহজ,হাতে কলমে করে দেখানোটা ততটাই কঠিন। বরফি খ্যাত অভিনেত্রী ইলিয়ানার কথায়, “অন্যের কথা নয় আমরা নিজেকে নিয়ে, নিজের বিষয়ে কী ধারণা পোষণ করছি ,সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ সেটাই।”

একটা সময় পর্যন্ত মানুষের কথায় ভেঙে পড়েছিলেন অভিনেত্রী। ইলিয়ানার মতে,তখন সেসব এড়িয়ে গেলেও বারবার অন্যদের মুখে শরীরী বিষয়ে নানা কটাক্ষ ও হেনস্থা শুনতে শুনতে তাঁরও মনে হয়েছিল সেসব বুঝি সত্যিই। তবে মনে জোর থাকলে এসব আর একটা সময় পর সেসব যে আর মোটেই জীবনে কোনো ছাপ ফেলেনা তাও স্পষ্ট জানান তিনি।

ileana D’Cruz  ইলিয়ানা ডি'ক্রুজ,

এখনো হয়ত অভিনেত্রীর ইন্সটাগ্রাম পোস্ট খুললে ১০ টি খারাপ মন্তব্য বেরোবেই। তাই ইলিয়ানার জানান, “এই জন্য আমি সকলকে অনুরোধ করি কাউকে কিছু বলার আগে ভাবুন। কারণ আপনার কথা তার জন্য কতটা স্পর্শকাতর সেটা হয়তো আপনার কল্পনাতেও নেই।”