লাইফ স্টাইল

মুখের চামড়া যাচ্ছে বুড়িয়ে! টানটান স্বতেজ ত্বক পেতে ম্যাজিকের মতো কাজ করবে এই প্যাক

অনেকক্ষেত্রেই ত্বকের রঙ উজ্জ্বল হলেও কুচকে যাওয়ার জন্য মুখে বার্ধক্যের ছাপ পড়ে যায়। আর তখনই ২৩ ২৪ বছরের যুবতীকেও লাগে ৬০ বছরের বৃদ্ধা। কিন্তু একটু যত্ন করলেই এই রুক্ষতা দূর হয়ে আপনি পেতে পারেন চনমনে মসৃণ টানটান ত্বক। ঘরোয়া উপায়ে একটি প্যাক বানিয়ে মুখে লাগালেই মাত্র ১০ দিনে এই সমস্যা দূর হতে পারে। কিন্তু মনে রাখতে হবে কেবল বাহ্যিক যত্নেই না সুন্দর স্বাস্থ্যবান ত্বক পেতে হলে প্রচুর পরিমাণে জল এবং হেলদি খাবার খাওয়ার অভ্যেস করতে হবে।

ত্বকের কুচকানো ভাব দূর করতে লাগবে:

ত্বকের কুচকানো ভাব দূর করতে যেই প্যাকটি ম্যাজিকের মতো কাজ করে সেটি হল গোলাপ দই মধুর ফেসপ্যাক।এই প্যাকটি বানানোর জন্য প্রয়োজন গোলাপের পাপড়ি ৭টি, দুই টেবিল চামচ গোলাপজল, দুই টেবিল চামচ টক দই ও এক টেবিল চামচ মধু।

প্যাকটি বানানোর পদ্ধতি:

প্রথমে গোলাপের পাপড়ি গুলি বেশ কিছুক্ষণ জলে ভিজিয়ে রেখে পরিষ্কার শিলে বেটে নিন। এরপর এর সঙ্গে দুচামচ গোলাপ জল, মধু, ও দু চামচ টক দই মিশিয়ে সেই মিশ্রণ ভালো করে মুখ এবং গলায় মেখে নিন। হালকা হাতে ম্যাসাজ করে ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

প্যাকের উপকারিতা :

১. যাদের ত্বক অন্তত্য রুক্ষ এবং শুষ্ক এই প্যাক ব্যাবহারে তাদের ত্বকের আদ্রতা ফিরবে। ফলে ত্বক নরম এবং ঝলমলে হবে।

২. মধু ও টক দই ত্বকে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল হিসেবে কাজ করে। এটি মরা কোষ দূর করে ত্বকের নতুন কোষ জন্মাতে সাহায্য করে।

৩. এই মিশ্রণ বলিরেখা দূর করে ত্বক টানটান ও সতেজ করতে সাহায্য করে। দই ত্বকে প্রাকৃতিক ব্লিচের কাজ করে এবং মধু ও টক দই একত্রে ত্বকে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল হিসেবে কাজ করে। এরফলে মরা কোষ দূর করে নতুন কোষ জন্মাতে সাহায্য করে।

এছাড়াও ত্বক টানটান রাখতে জলের ভূমিকা কতটা, সে তো সকলেই জানেন। শরীর হাইড্রেটেড থাকলে ত্বকের উজ্জ্বলতা আর ইলাস্টিসিটি দুটোই বাড়বে।

Related Articles

Back to top button