গসিপবিনোদন

একটা ভুলের মাশুল গুনতে হচ্ছে আজীবন, নিজের দোষে ছোট বয়সেই অধিক যৌবনা শাআ লাকা বুমের হানসিকা

হানসিকা মোতওয়ানি আজ সিনেমা জগতে একজন সুপরিচিত অভিনেত্রী। শিশু অভিনেতা হিসেবেই ক্যারিয়ার শুরু করেন তিনি। শুরুতে দুজনেই টিভি সিরিয়ালে কাজ করতেন। ছোট বাচ্চাদের প্রিয় শো ‘শাকা লাকা বুম বুম’-এ খুব গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা কুড়িয়েছিল হানসিকাকে।ছোট পর্দায় এই শো দিয়ে তার অভিনয় জীবনের শুরু। পরবর্তীতে একজন শিশু অভিনেতা হিসাবে, হানসিকা হৃতিক রোশনের ‘কোই মিল গ্যায়া’ ছবি সহ বলিউডের অনেক ছবিতেও অভিনয় করেছেন। প্রথমে টিভি তারপর বলিউড থেকে সাউথ ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে হানসিকা আজ নিজের পরিচয় তৈরি করেছেন।

যদি হানসিকার ব্যক্তিগত জীবনের কথা বলি, তাহলে আপনাকে জানাই যে হানসিকার জন্ম ১৯৯১সালে, মুম্বাইতে। হানসিকার বাবা একজন ব্যবসায়ী, আর তার মা একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ। হান্দিকা মুম্বাইয়ের পোদার ইন্টারন্যাশনাল স্কুল থেকে তার স্কুলিং শেষ করেছেন।

হানসিকা মূলত তামিল এবং তেলেগু চলচ্চিত্রেই অভিনয় করেন। টিভি সিরিয়ালে শিশু অভিনেতা হিসেবে কাজ করার পর বলিউড অভিনেতা হৃতিক রোশনের ‘কোই মিল গ্যায়া’ ছবিতে শিশুশিল্পী হিসেবে কাজ করেন হানসিকা। এরপর ২০০৭ সালে হিমেশ রেশমিয়ার ‘আপকা শুরার’ ছবিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন।

একই বছর দক্ষিণী সিনেমা ‘দেশমুদুর’-এও দেখা গেছে তাকে। এই সিনেমার জন্য পুরস্কারও পেয়েছেন হানসিকা। আর এই সিনেমা থেকেই জনপ্রিয়তা পান তিনি। এছাড়া হানসিকা মালায়ালাম ছবিতেও কম কাজ করেছেন। কিন্তু এইটুকু বয়সেই চেহারা এবং যৌবনের দিন থেকে অনেক বেশি পরিণত দেখায় তাকে।

এর কারন হিসেবে একবার শোনা গিয়েছিল হরমোন পরিবর্তনের ইনজেকশন দিয়েছিলেন হানসিকা। এই সব বলা হয়েছিল কারণ তিনি ২০০৩ সালের চলচ্চিত্র কোই মিল গায়া-এ একজন শিশু অভিনেতা হিসাবে উপস্থিত হয়েছিলেন এবং কয়েক বছর পরে তিনি ২০০৭ সালের চলচ্চিত্র আপকা শুরুয়ারে একজন প্রধান অভিনেত্রী হিসাবে উপস্থিত হন।

কয়েক বছরে এত পরিবর্তন দেখার পর, সবাই এখানে ভাবতে শুরু করেছে যে হানসিকার তারুণ্যের চেহারার পিছনের রহস্য তার হরমোন পরিবর্তনের ইনজেক্ট করা। তারপর সর্বত্রই সবাইকে বলতে হয়েছিল যে এত তাড়াতাড়ি তরুণ দেখতে হারমান চেঞ্জ ইনজেকশন দিয়েছেন হানসিকা। যদিও এ বিষয়ে এখনও পর্যন্ত হানসিকার কোনো বক্তব্য আসেনি।

 

Related Articles

Back to top button