গসিপবিনোদন

টাকার অভাবে মুদির দোকান থেকে চাল-ডাল না কিনতে পেরে কেঁদেছিলেন সেদিন! আজ সেই গোবিন্দা কয়েক কোটির মালিক

বলিউড (Bollywood) জগতের জনপ্রিয় অভিনেতাদের মধ্যে একজন হলেন গোবিন্দা (Govinda)। তাঁর জনপ্রিয়তা নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। গোবিন্দার অভিনয়ের থেকেও তিনি মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছেন তার নাচের কারণে। এই বয়সেও বিন্দুমাত্র ভাটা পড়েনি তার এনার্জিতে। আজ অর্থাৎ ২১ শে নভেম্বর এই এভারগ্রীণ অভিনেতা পা দিলেন আটান্নতে। কমেডি, থেকে রোমান্স নাচ থেকে অ্যাকশন সব ছবিতেই বাজিমাত করে বলিউডে প্রতিষ্ঠিত হন অভিনেতা।

কিন্তু আজ তিনি সফল হলেও এই জায়গায় পৌঁছানো খুব একটা সহজ কথা ছিলনা। খুব নিম্নবিত্ত পরিবারে জন্ম হয় তার। ছোট থেকেই তিনি বুঝেছেন অভাব কাকে বলে। গোবিন্দার জন্মের আগেই তাঁর বাবা অরুণ আহুজা (Arun Ahuja) প্রযোজিত একটি ফিল্ম চূড়ান্ত ফ্লপ হয়েছিল। এর জেরে তাদের পরিবারের আর্থিক অবস্থা কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছিল।

Govinda 1

আজ থেকে বছর ২০ আগে একটি সাক্ষাৎকারে গোবিন্দা জানিয়েছিলেন তার পরিবারের অভাব অনটনের কথা। নুন আনতে পান্তা ফুরোতো তাদের। পয়সার টানাটানি এতটাই ছিল যে মুদিখানা দোকান থেকে চাল ডাল তেল মশলা আনার ক্ষমতাও ছিলনা তাদের। মুদির দোকানদার জানতেন গোবিন্দার কাছে টাকা নেই, তিনি ধারে জিনিস নেবেন আর সেই কারণেই ঘন্টার পর ঘন্টা অভিনেতাকে দাঁড় করিয়ে রাখা হত। এত অপমানিত হয়ে গোবিন্দা শেষ দিকে দোকানেই যেতে চাইতেন না।

এই অবস্থায় প্রতিনিয়ত তিনি মাকে চোখের জল ফেলতে দেখতেন। মায়ের দুর্দশা দেখে চোখে জল আসত গোবিন্দারও। কিন্তু কথায় বলে খারাপ সময় যেমন আসে তেমনই ভালো সময়ও আসে। এরপর ১৯৮৬ সাল থেকেই বদলাতে শুরু করে অভিনেতার ভাগ্য। লাভ 86’ ফিল্মের মাধ্যমে বলিউডে ডেবিউ করেন তিনি। তারপর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি অভিনেতাকে একের পর এক হিট ছবি উপহার দিয়েছেন তিনি।

কিন্তু আজ তার সম্পত্তির পরিমাণ জানলে ভিরমি খাবেন। কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় না করেও প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা উপার্জন করেন গোবিন্দা। গোবিন্দা বলিউডের অন্যতম ধনী অভিনেতাদের একজন। আজ রইল তারই সম্পত্তির খতিয়ান। গোবিন্দার মোট আয় এবং কীভাবে তিনি সেই আয় করেন তা বিস্তারিত জেনেন নিন।

Govinda

এক সময় চলচ্চিত্রের থেকে বিপুল অঙ্কের টাকা কামান গোবিন্দা। গোবিন্দা তাঁর কাজ দিয়ে হিন্দি সিনেমায় উচ্চ স্থান অর্জন করেছিলেন। ১৯৮৬ সালে ইলজাম ছবি দিয়ে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেন অভিনেতা। তবে ৮০-৯০ এর দশকে তিনি কমেডি কিং হিসেবেও নিজের পরিচয় গড়ে তুলেছিলেন। আন্টি নাম্বার ওয়ান, কুলি নাম্বার ওয়ান, হিরো নাম্বার ওয়ান, রাজা বাবু, হাসিনা মান জায়েগি, সাজন চালে সাসুরাল এর মতো অনেক কমেডি ছবি করেছিলেন। যা মানুষ অনেক পছন্দ করেছে।

তার মুম্বই এবং তার আশেপাশে মোট তিনটি বাংলো রয়েছে। এই বাংলো গুলির একটি মাড দ্বীপে, এবং অন্যটি মুম্বইয়ের অভিজাত অঞ্চল জুহুতে, এখানেই তিনি তার পরিবারের সাথে থাকেন। এছাড়াও বিপুল সম্পত্তির অধিকারী অভিনেতা। প্রায় দেড়শো কোটির সম্পত্তির মালিক কমেডি কিং।

বর্তমানে ছবিতে দেখা যায়না তবুও তিনি বছরে কোটি কোটি টাকা আয় করেন। গোবিন্দ ব্র্যান্ড এন্ডোসমেন্টের মাধ্যমে এই অর্থ উপার্জন করেন। এটি ছাড়াও তিনি রিয়েল এস্টেট থেকেও প্রচুর উপার্জন করেন। গোবিন্দ প্রতি বছর প্রায় ১ কোটি টাকা আয় করেন। রিয়েল এস্টেট ছাড়াও গোবিন্দার অনেক দামি গাড়ি রয়েছে। এর মধ্যে একটি হ’ল মার্সিডিজ-বেঞ্জের হাই-টেক মডেল গাড়ি।

Related Articles

Back to top button