লাইফ স্টাইল

শীতের শুরুতেই ফাটছে পা! রইল বাড়িতেই পায়ের যত্ন নেবার সহজ ৫টি উপায়

শীতের শুরুতেই রুক্ষ ও শুষ্ক ত্বক, সাথে ফাটতে শুরু করে পায়ের পাতাও। অনেকেই শীতকালে এই সমস্যার সম্মুখীন হন। পা ফেটে গেলে নানাধরণের অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। বিশেষত যাদের পা অতিরিক্ত ফেটে (Cracked Heels) যায় তাদের ক্ষেত্রে হাটা চলাও সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। সাথে থাকে যন্ত্রনা। তবে এসবের থেকে চাইলে আগেই মুক্তি পাওয়া যেতে পারে যদি পায়ের যত্ন (Foot Care in Winter) নেওয়া যায়।

আজ আপনাদের জন্য পায়ের যত্ন নেবার কয়েকটি ঘরোয়া উপায় নিয়ে এসেছি। যেগুলো শীতকালে পা ফাটার হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে। শুধু তাই নয় এই উপায় গুলি খুবই সহজ। আর যাদের পা ফাটতে শুরু করেছে তারা এই উপায়গুলির সাহায্যে পায়ের যত্ন নিলে পা ফাঁটা একদিনেই গায়েব হয়ে যাবে। চলুন দেখে নেওয়া যাক ঘরোয়া উপায়গুলিকে।

লেবু 

লেবুর রস Leomn Juice

অনেকেই পা ফাটা আটকানোর জন্য ভেসলিন জাতীয় জিনিস ব্যবহার করে থাকেন। তবে ঘরে থাকা পাতি লেবুর রস ভেসলিনের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করলে দারুন উপকার পাওয়া যায়। এর জন্য প্রথমে গরম গোলে মিনিট ১০-১৫ পা ডুবিয়ে রাখতে হবে। এরপর একচামচ ভেলসিনের সাথে ৪-৫ ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে পায়ে লাগিয়ে নিতে হবে। তাহলেই গোড়ালি থেকে পায়ের পাতা নরম হয়ে যাবে।

নারকেল তেল 

Hair Problem Hair Growth Coconut Oil Lemon

প্রায় প্রতিটা বাড়িতেই নারকেল তেল থাকে। আর এই নারকেল তেলই পায়ের যত্নে ম্যাজিকের মত কাজ করতে পারে। রাতে শুতে যাবার আগে পায়ে ভালো করে নারকেল তেল মালিশ করে নিন। আর শেষে পাতলা মোজা পরে শুয়ে পড়ুন। পরের দিন সকালে পা ধুয়ে নিন। নারকেল তেল সারারাত পায়ের ত্বক হাইড্রেটেড করে রাখে যার ফলে পা ফেটে যায় না।

ভিটামিন ই ক্যাপসুল 

রূপচর্চার জন্য অনেকেই বাড়িতে ভিটামিন ই ক্যাপসুল ব্যবহার করেন। তবে রূপচর্চার পাশাপাশি পায়ের যত্নেও দারুন কার্যকর এই ভিটামিন ই ক্যাপসুল। পায়ের ফাটা জায়গায় ক্যাপসুলের ভেতরের তরল অংশ ভালো করে ম্যাসাজ করে মিনিট ৩ রেখে ধুয়ে ফেলুন। একসপ্তাহের মধ্যেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।

গ্লিসারিন ও গোলাপ জল 

সৌন্দর্যচর্চা যারা করেন তারা খুব ভালোভাবেই জানেন গ্লিসারিন ত্বকের যত্নে দারুন কার্যকর। একইভাবে গোলাপ জলও উপকারী। এই দুইয়ের মিশ্রণ শুতে যাবার আগে ম্যাসাজ করে শুয়ে পড়লেই কয়েকদিনের মধ্যেই ম্যাজিকের মত পায়ের ত্বক নরম ও তরতাজা হয়ে উঠবে।

কলা ও অ্যাভোগাডো

ত্বকের যত্নের জন্য যেমন ফেস মাস্ক ব্যবহার করা হয় তেমনি পায়ের যত্নের জন্যও মাস্ক ব্যবহার করা যেতেই পারে। এক্ষেত্রে উপকরণগুলো একটু আলাদা, কলা ও অ্যাভোগাডো। এইডাই ফল ভালো করে পেস্ট মত করে মিশিয়ে নিয়েই পায়ে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ধুয়ে নিলেই হবে। মজার বিষয় হল সপ্তাহে একদিন এই কাজ করলেই যথেষ্ট।

Related Articles

Back to top button