গসিপবিনোদনসিরিয়াল

মাছের গন্ধ সহ্য হয়না সৌমিতৃষার! মিঠাইয়ের শ্যুটিংয়ে মাছ রাঁধতে গিয়ে বমিতে ভাসিয়েছিলেন অভিনেত্রী

বাংলার বিনোদন জগতের এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হল মেগা সিরিয়াল। বর্তমানে বাংলার এক নম্বর সিরিয়াল মানেই সবার মুখে শুধু একটাই নাম ঘুরছে। তা হল জি বাংলার জনপ্রিয় সিরিয়াল ‘মিঠাই'(Mithai)। একটানা টানা ২৩ সপ্তাহ ধরে টিআরপি রেটিংয়ে একচেটিয়া ভাবে শীর্ষ স্থান দখল করে বেঙ্গল টপারের খেতাব নিজেদের দখলেই রেখেছে মিঠাইয়ের মোদক পরিবার।

এখন তো রাজ্যের গন্ডী ছাড়িয়ে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে মিঠাইয়ের মিষ্টতা। টিভির পর্দায় সিরিয়ালের দুষ্টু,মিষ্টি নায়িকা মিঠাইয়ের ভূমিকায় সৌমিতৃষা কুন্ডু (Soumitrisha Kundu) আর গোমড়ামুখো সিডের ভূমিকায় অভিনয় করছেন আদৃত রায় (Adrit Roy)। তাঁদের সম্পর্কের রসায়ন দেখতে বসলে টিভির পর্দায় থেকে চোখ সরে না দর্শকদের। এতেই বোঝা যায় এই জুটি একেবারে দর্শকদের মনের মণিকোঠায় জায়গা করে নিয়েছে।

আর দর্শকদের এই অফুরন্ত ভালোবাসা আপ্লুত খোদ সৌমিতৃষাও। এপ্রসঙ্গে তিনি সংবাদমাধ্যমে বলেছেন ‘সমস্ত অভিনেতা থেকে শুরু করে কলাকুশলী, সকলের যৌথ পরিশ্রমের ফল এটা। পরিশ্রমের যে দামটা পাচ্ছি, দর্শকদের এত ভালোবাসা পাচ্ছি, সেই অনুভূতিটা বলে বোঝাতে পারবো না। টিআরপিতে স্থান পরিবর্তন হতেই পারে কিন্তু আশা করবো এই ভালোবাসাটা যেন সকলের থেকে সব সময় পাই।’

তবে দর্শকদের ভালোবাসা পাওয়া এতটাও সহজ নয়। তা ভালোই বোঝেন সিরিয়ালের নায়িকা সৌমিতৃষা। সিরিয়ালে বাড়ির সকলের মর্জিমাফিক রান্না করার জন্য রান্না ঘরে মিঠাইয়ের অবাধ বিচরণ। সেই রান্নার তালিকায় প্রায়ই থাকে হরেক রকম মাছের পদ। কখন দাদুর নাতির ভুল ঢাকতে চিতল মাছের পরিবর্তে আড় মাছের মুইঠ্যা বানিয়ে তাক লাগিয়ে দিচ্ছে, আবার কখনও দাদুর জন্য তাঁর প্রিয় পাবদা মাছের সর্ষে পোস্ত বানিয়ে সকলের মন জয় করে নিচ্ছে।

কিন্তু বাস্তবের মিঠাই অর্থাৎ সৌমিতৃষা মাছের গন্ধ একেবারে সহ্য করতে পারে না। মাছের গন্ধ নাকে এলেই বমি পায় তাঁর। কিছুদিন আগেই আড় মাছের মুইঠ্যা বানাতে গিয়ে নাকি বমি পেয়ে গিয়েছিল তাঁর। তবে মাছে গন্ধ লাগলেও ফিস ফিঙ্গার কিংবা ফিস ফ্রাই এই পদগুলিতে তার কোনো না নেই। তাই যে কোনো রেস্টুরেন্টে কিংবা শুটিং ফ্লোরে বসে দিব্বি প্লেট পরিস্কার করে দিতে পারেন অভিনেত্রী। আর এখানেই পর্দার উচ্ছে বাবু অর্থাৎ আদৃতের সাথে তাঁর বেজায় মিল। কারণ রিল হোক রিয়েল মাছ খেতে পছন্দ করেন না আদৃত রায়ও। তবে মাছের প্রতি এই অভক্তির ছাপ কিন্তু কখনই সিনে পড়তে দেন না সৌমিতৃষা।

Related Articles

Back to top button