গসিপবিনোদনসিনেমা

শুধুই নয় বলিউড! গাঁজার নেশায় বুদ হয়ে থাকতেন অনিন্দ্য, রাহুল থেকে শুরু করে একাধিক টলি তারকারা

বিগত কিছুদিন বলিউড (Bollywood) নিয়ে আলোচনা তুঙ্গে, নেপথ্যে ড্রাগস কান্ড। বলিউডের সুপারস্টার  শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান (Aryan Khan) মাদক চক্রে ধরা পড়েছে। কিন্তু শুধুই কি বলিউড! না মশাই, টলিউডেও (Tollywood) এমন পার্টি হামেশাই হয়ে চলেছে। পার্টিতে প্রথাগর অ্যালকোহলের পাশাপাশি চলে দেদার মাদকের নেশা। বলতে গেলে টলিউডের সেলেব্রিটিরাও নেশার দিক দিয়ে কোনো অংশে কম যান না।

অনেকেই ভাবেন যে বর্তমানের পার্টিতে এই সমস্ত মাদকের ব্যবহার প্রচলিত হয়েছে। কিন্তু ইতিহাস বলে বিষয়টা ঠিক এমন নয়! সেই ৭০-৮০র দশক থেকেই একাধিক তারকাদের মধ্যে নেশাগ্রস্ত হবার খবর মিলেছে। মহুয়া রায়চৌধুরী (Mohua Roychowdhury) থেকে সুমিত্রা মুখোপাধ্যায়ের মত  একাধিক তাকরার মাদক সেবন করতেন। জানা যায় মানসিক অবসাদ থেকেই এই মাদক সেবন করতেন তাঁরা। তবে বর্তমান সমাজে এটা স্ট্যাটাসের চিহ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

Drugs

মাদকের নানা রূপ সামনে এসেছে সময়ের সাথে সাথে। একসময় মাদক বলতে গাঁজার চল ছিল ব্যাপক টলিপাড়ায়। বর্তমানে তার সাথে যুক্ত হয়েছে আরো বিষাক্ত এলএসডি, চরস, হ্যাশ ইত্যাদি এসেছে। পার্টি হোক বা জীবনের চূড়ান্ত সাফল্য উপভোগ মাদক নিয়েই ক্ষনিকের খুশিতে মেতে ওঠেন তারকারা। আবার অনেক সময়েই বেশি নেশা করে হাসপাতালেও ভর্তি হতে হয়েছে।

টলিউডের ৮০ এর দশকের অভিনেত্রী মহুয়া রায় চৌধুরী। জানা যায় অভিনেত্রী মাদকে আসক্ত ছিলেন। টলিউডের এক গায়ক তো আবার সিগারেট খাবার বাহানায় দিনভর গাজা খেয়েই থাকেন! গায়কের ছেলের কাছে মিলেছিল গাঁজা, যেকারণে অস্বস্তিতে পরিগিয়েছিলেন তিনি।  আবার এমন গীতিকারও  রয়েছেন যাদের নেশা ছাড়া গান আসে না কলমে। তবে কিছু অভিনেতারা রয়েছেন যারা নিজেদের মাদকাসক্তি কাটিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন। তারা নিজেরাই জানিয়েছেন এক সময়ের মাদকাসক্তির কথা।

টলিউডের বেশ পরিচিত অভিনেতা রাহুল অরুণোদয় ব্যানার্জী (Rahul Arunodoy Banerjee)। ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’  ছবিতে রাহুল ও প্রিয়াঙ্কার অভিনয় দর্শকদের মনে আজও গেঁথে রয়েছে। কিন্তু অভিনেতা একসময় ড্রাগসের নেশায় ডুবে গিয়েছিলেন। প্রেসক্রাইব ড্রাগস দিয়েই শুরু হয়েছিল নেশা, ক্রমে বাড়তে থাকে। ব্যক্তিগত জীবন থেকে কর্মজীবন সবেতেই প্রভাব ফেলেছিল মাদকাসক্তি।

Rahul Arunoday Banerjee

অভিনেতার মতে, কখন বুঝতে পারি কাজের ক্ষতি হচ্ছে তখন বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিই। ইন্ডাস্ট্রির একাধিক অভিনেতারা পাশে থেকেছেন আমাকে ব্যস্ত রাখতে ও নেশার থেকে দূরে থাকতে। শেষ ১০ বছর আমার সম্পূর্ণ মাদকাসক্তি মুক্ত। তবে একটা কথাই বলার, সেটা হল যারা নেশা করে তাদের সমাজের থেকে দূরে না সরিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর চেষ্টা করতে হবে।’

অনিন্দ্য চ্যাটার্জী Anindya Chatterjee

টলিউডের আরেক অভিনেতা অনিন্দ্য চ্যাটার্জী (Anindya Chatterjee)। তিনিও একসময় মাদকের নেশায় বুদ্ হয়ে থাকতেন। তবে বর্তমানে তিনি সম্পূর্ণ আলাদা, নেই কোনো মাদকাসক্তি। অভিনেতার কথায়, ‘ দীর্ঘ আট বছর নেশার জগতে কাটিয়েছিল। কিন্তু যখন বুঝতে পারি যে এবার এসব বন্ধ না করলে  মরে যাব তখন সরে আসি। গাঁজা থেকে শুরু করে হিরোইনের নেশা সবটাই ছেড়ে দিই’।

Related Articles

Back to top button