বিনোদন

রিয়ার মতো শেহনাজের জীবনটাও শেষ করে দেবেন না! সিদ্ধার্থের প্রয়াণে উদ্বেগ নেটিজেনদের

মাত্র বছর খানেকের ব্যবধান। ২০২০ সালের ১৪ ই জুন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুতে থমকে গিয়েছিল গোটা দেশ। অভিনেতার বান্দ্রার আবাসন থেকে উদ্ধার হয়েছিল তার ঝুলন্ত দেহ, ঠিক এক বছর তিন মাসের মাথাতেই সুশান্তের মতোই অকালে চলে গেলেন আরও একজন প্রতিভাবান অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লা। এই দুই অভিনেতার মৃত্যুর কারণ আলাদা হলেও তাদের হারানোর ক্ষতটা একই রকম।

ময়না তদন্তের রিপোর্ট বলছে সুশান্তের মৃত্যুর কারণ আত্মহত্যা, এবং সিদ্ধার্থ শুক্লার মৃত্যু হয়েছে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে। ঘুমের মধ্যে চির নিদ্রায় চলে গিয়েছেন অভিনেতা। যদিও এই দুই মৃত্যুর মধ্যে কোনো যোগ সূত্র নেই, তবুও অভিনেতার অনুরাগীদের একাংশ এই মৃত্যুতে ‘ফাউল প্লে’র গন্ধ পাচ্ছেন। সুশান্তের মৃত্যু ঘিরে উঠে এসেছিল অসংখ্য প্রশ্ন নেপোটিজম, মানসিক অবসাদ, মাদক যোগ ইত্যাদি।

কিন্তু সিদ্ধার্থের পরিবার বারংবারই জানিয়েছেন তার মৃত্যু একেবারেই আকস্মিক। তবুও যেন চর্চা থামছেই না। সুশান্তের মতোই সিদ্ধার্থের মৃত্যুও বিষাদের কিন্তু এতে জোর করে সুশান্তের মৃত্যু সম্পর্কিত প্রশ্ন তুলে আনছেন কিছু নেটিজেন। ইতিমধ্যেই আঙুল তোলা হয়েছে মুম্বইয়ের কুপার হাসপাতালের দিকে কেননা সুশান্তের মৃত্যুও সেখানেই হয়েছিল।

স্মৃতির পাতা উল্টোলেই মনে পড়বে সেই সময় সুশান্তের মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয়েছিল তার প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীকে। একেরপর এক প্রশ্নবাণে জর্জরিত হয়ে তিনি পেয়েছিলেন ডাইনি আখ্যা। জেলেও যেতে হয়েছিল তাকে। আজও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি রিয়া, মামলা চলছে। কিন্তু দোষী সাব্যস্ত হওয়ার আগেই নেটিজেনদের চোখে সুশান্তের খুনি রিয়াই।

সিদ্ধার্থের মৃত্যুর দায় যেন কোনোভাবেই তার প্রেমিকা শেহনাজের উপরে না নেমে আসে এবার সেই বিষয়ে নড়েচড়ে বসলেন নেটিজেনদের একাংশ। বিগবস থেকেই সকলের প্রকাশ্যে এসেছিল ‘সিডনাজ’ জুটির ঘনিষ্ঠতা। প্রেমিকের আকস্মিক মৃত্যুর পর স্বভাবতই খবরের শিরোনামে অভিনেত্রী শেহনাজ গিল। এবার টুইটারে তাকে নিয়েই চিন্তার ভাঁজ অনুরাগীদের কপালে৷ এক টুইটারেত্তি লিখেছেন, “আমাদের সক্রিয় থাকতে হবে। শেহনাজকে যেন অযাচিত ভাবে টানা না হয়, সেটা আমাদেরই দেখতে হবে।” আর একজন লিখেছেন, “আমার শেহনাজের জন্য ভয় করছে। ও সিদ্ধার্থকে নিজের পৃথিবী বলে ডাকত। শোক কাটিয়ে সে যদি আবারও স্বাভাবিক হয় তবেও লোকে তা নিয়ে কথা বলবে।”

Related Articles

Back to top button