খবরবিনোদনসিনেমা

বন্যায় অসহায় হয় পড়েছে ঘাটালের বহু মানুষ! পাশে দাঁড়ালেন সাংসদ অভিনেতা দেব

একটানা বৃষ্টির জেরে বন্যা কবলিত রাজ্যের একাধিক এলাকা। কার্যত জলের তলায় ভাসছে গ্রামের পর গ্রাম। একই দৃশ্য মেদিনীপুরের ঘাটালেও (Ghatal)। এমনিতে বরাবরই ঘাটালবাসী তাঁদের দুর্দিনে পাশে পেয়েছেন তৃণমূলের সাংসদ তথা অভিনেতা দেবকে (Dev)। বর্তমান বন্যা পরিস্থিতিতেও তার অন্যথা হয়নি। গতকাল অর্থাৎ বুধবার ঘাটালের একাধিক এলাকা পরিদর্শনে গিয়েছিলেন তিনি।

সেখানে গিয়ে একটানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন এলাকার অসহায় মানুষদের সাথে কথা বলে সকলকে সাহায্য করার আশ্বাস দেন দেব। সেখানে ক্যামেরাবন্দি হওয়া দেবের ছবিতে দেখা যাচ্ছে খালি পায়ে কাদায় দাঁড়িয়ে সাধারণের ভিড়ে মিশে গিয়ে প্রত্যেকের সমস্যার কথা মন দিয়ে শুনছেন দেব। এমন দুর্দিনে সাংসদকে পাশে পেয়ে কিছুটা আশ্বস্ত হয়েছেন ঘাটালবাসী।

Dev helping Ghatal Peoples দেব

গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে জলমগ্ন ঘাটাল৷ ঘাটাল ব্লকের ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত ও ঘাটাল পুরসভায় ১৭টি ওয়ার্ডে জল জমছে। গত দুদিন ধরে জলের তলায় ঘাটাল-চন্দ্রকোনা রাজ্য সড়ক। বৃষ্টি কমলেও গেলেও, রাস্তার জল না সরায় যোগাযোগ ব্যাহত হয়েছে। এছাড়া জলের তলায় চলে গিয়েছে একাধিক চাপা কল । এরফলে পানীয় জলেরও সমস্যা দেখা দিয়েছে। তবে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জলের পাউচ দেওয়া হলেও, সমস্যা মিটছে না বলেই খবর।

Dev helping Ghatal Peoples দেব

এদিন ঘাটালে গিয়ে ফের একবার ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান (Ghatal Master Plan) নিয়ে সরব হয়েছেন দেব। তিনি বলেন, ‘বলতে বাধ্য হচ্ছি। যতক্ষণ না দিদি প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন, ততক্ষণ পর্যন্ত ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের কাজ শেষ হবে না। যতই বিরোধী দলের লোকজন বলুক না কেন, সোনার বাংলা বানাব। কিন্তু, ভোটের পর তাঁদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ভোটের সময় এসে বড় বড় কথা বলে চলে গেল। এটা দুঃখজনক।’

Dev helping Ghatal Peoples দেব

সেইসাথে এদিন ঘাটালের বন্যা পরিদর্শনে এসে দেব বলেন, ‘আমি দিল্লিতে ছিলাম। সংসদে কিছু বিষয় নিয়ে বক্তব্য রাখব বলে ঠিক করেছিলাম। কিন্তু, ঘাটালের যা পরিস্থিতি। ক্রমশই জল বাড়ছে। গ্রামের পর গ্রাম জলের তলায় ডুবে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে যারা আমাকে দেব বানিয়েছেন, আমাকে সংসদ বানিয়েছেন তাঁদের কাছে থাকাটা বেশি প্রয়োজন বলে মনে হয়েছে আমার।’ সেইসাথে তাঁর আরও সংযোজন ‘আমি রাজনীতি অতটা বুঝি না। এখন মানুষকে উদ্ধার করাটা বেশি প্রয়োজন। আমরা হয়ত এখনও সমস্ত কাজ সম্পূর্ণ করে উঠতে পারিনি। কিন্তু, চেষ্টা করে যাব, যাতে মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় ওষুধ, ত্রাণ পৌঁছে যায়।’

Related Articles

Back to top button