গসিপবিনোদনসিরিয়াল

হাওয়ায় ফতফত করছে প্লাস্টিকের খাঁড়া! তা দিয়েই শিবু গুন্ডাকে কুপিয়ে খুন, ট্রোলের মুখে নোয়া

স্টার জলসার জনপ্রিয় মেগা সিরিয়াল ‘দেশের মাটি’ (Desher Mati)। পারিবারিক সম্পর্ককে বিষয় বস্তু করে লীনা গাঙ্গুলীর (Leena Ganguly) লেখা এই সিরিয়ালের শুরুটা নোয়া-কিয়ানের (Noa-Kian) গল্প দিয়ে হলেও নানা ঘটনা প্রবাহের মধ্যে দিয়ে এই সিরিয়ালে রাজা-মাম্পি (Raja-Mampi) জুটি দর্শকমহলে বিশেষ জায়গা করে নিয়েছে। মাত্র কদিন আগেই বাঁধা-বিপত্তি পেরিয়ে নাটকীয়ভাবে বিয়ে হয়েছে রাজা-মাম্পির। আর তারপরেই গল্পের মোড় ঘোরানো টুইস্ট নিয়ে হাজির হয়েছে এই সিরিয়াল।

এমনিতে শুরু থেকেই দেশের মাটি সিরিয়ালের নানা বিষয়কে কেন্দ্র করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপত্তি তুলেছেন নেটিজেনরা। তা সে নোয়া কিয়ানের পরিবর্তে রাজা মাম্পি জুটিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া নিয়ে হোক, কিংবা সিরিয়ালের নায়িকা শ্রুতি দাসের গায়ের রঙ নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করাই হোক। এছাড়া অতি সম্প্রতি রাজা মাম্পির ফুলশয্যার দৃশ্য নিয়েও আপত্তি ছিল নেট নাগরিকদের।

দেশের মাটি Desher Mati Noa arrested for trying to kill shibu

এসবের মধ্যেই এবার শিবু গুন্ডাকে (Shibu Gunda) প্লাস্টিকের খাঁড়া দিয়ে কুপিয়ে খুন করে অট্টহাসি হেসে ফের একবার নেটিজেনদের হাসির পাত্রি হলেন নায়িকা নোয়া অর্থাৎ শ্রুতি দাস। তবে শুধু শ্রুতি একা নন, খিল্লি হচ্ছে শোয়ের ক্রিয়েটিভদের নিয়েও। নেটিজেনদের প্রশ্ন একটা আসল খাড়া দিয়ে কেন শ্যুট করা হল না! আবার অনেকে লিখেছেন, এটা দিয়ে মশাও মরবে না, মানুষ খুন তো দূরের কথা।

সিরিয়ালের প্লট অনুযায়ী এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে কিয়ান। প্রতিশোধ তার এই অবস্থা করেছে শিবু গুন্ডা। তাই তাকে শাস্তি দিতে মন্দির থেকে খাঁড়া নিয়ে সে ছোটে শিবুকে শাস্তি দিতে। এরপর দেখা যায় প্লাস্টিকের খাঁড়া হাতে শিবুর বাড়িতে পৌঁছে নোয়া। হাওয়ায় ফতফত করে নড়ে ওঠা সেই খাঁড়া দিয়েই শিবুকে কুপিয়ে খুন করে নোয়া। এরপর তার মা বাবার সামনেই চিৎকার করে বলতে থাকে, ‘আপনার ছেলেকে না পুরো শেষ করে দিয়েছি’।

Desher Mati Noa trolled for using Plastic weapon to murder shibu

এই দৃশ্য দেখেই হাসির রোল উঠেছে নেটপাড়ায়। শুরু হয়েছে ট্রোলিং তাদের দাবি এভাবে প্লাস্টিকের খাঁড়া দিয়ে যে কুপিয়ে খুন করা যায়, তা তাঁদের আগে জানা ছিল না!এমনকী, নোয়ার সঙ্গে জবার তুলনা করে তারা বলছেন জবা-র হারিয়ে যাওয়া বোন-কে তাঁরা পেয়ে গিয়েছেন। যে করতে পারে না, এমন কোন কাজই নেই।

Related Articles

Back to top button