বিনোদন

এই ভয়টাই ছিল,একটা সম্পর্ক শেষ করে দিল! সিনেবাপকে নিয়ে বড়সড় পোস্ট তাঁর স্ত্রী রুমার

ইদানীং সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে তোলপাড় সাউথ ভার্সেস নর্থের লড়াইয়ে। তবে এখানে কিন্তু বিষয় সিনেমা নয়। কারণ উত্তর দক্ষিণ লড়াইয়ের বিষয় একেবারে ভিন্ন। যার সূত্রপাত ঘটে বাংলার জনপ্রিয় গেম শো দাদাগিরির (Dadagiri) একটি এপিসোড নিয়ে। সেই থেকে একে অপরের সাথে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন জনপ্রিয় ইউটিউবার ‘দ্য বং গাই’ (The Bong Guy) খ্যাত কিরণ দত্ত (Kiran Dutta) এবং ‘সিনেবাপ মৃন্ময়’ (Cinebap Mrinmoy) খ্যাত মৃন্ময় দাস (Mrinmoy Das)।

দাদাগিরিতে বাংলার জনপ্রিয় ইউটিউবারদের নিয়ে তৈরি ওই এপিসোডে দক্ষিণ বঙ্গের সব ইউটিউবাররা ডাক পেলেও জায়গা হয়নি উত্তরবঙ্গের কনটেন্ট ক্রিয়েটারদের। তাই উত্তরবঙ্গের ইউটিউবারদের হয়ে গলা তুলেছিলেন সিনেবাপ মৃণ্ময়। যার বেশীরভাগ অংশে তিনি ‘দ্য বং গাই’ খ্যাত কিরণ দত্তের ওপর ক্ষোভ উগরে দেন মৃণ্ময়। ভিডিওটি কিরণ দত্তের চোখে পড়তেই তিনিও একেবারে কড়া ভাষায় সমস্ত সমালোচনার সপাট জবাব দেন। প্রসঙ্গ তোলেন সিনেমার পুরনো বেশ কিছু কুরুচিপূর্ণ ভিডিওর। এরপর পাল্টা উত্তর দিতে আবার একটি ভিডিও বানান সিনেবাপ।

সেখানে তিনি কিরণ দত্তের চর্চিত প্রেমিকার প্রসঙ্গও টেনে আনেন। কিন্তু এসবের মাঝেই সোমবার দিনভর ভাইরাল হয় মৃণ্ময় দাসের বৌ রুমা মোদক Ruma Modak) ।যার ফলে অনিচ্ছা সত্ত্বেও বিতর্কের মাঝে এসে পড়েন মৃণ্ময়ের স্ত্রী। ভাইরাল ওই পোস্টে মৃণ্ময়ের স্ত্রী রুমা লিখেছিলেন, ‘যেখানে নিজের কথার কোনও দাম নেই সেখানে সস্তার পাবলিসিটির দরকার কোনও দিনই ছিল না আমার।’ ব্যাস এই পোস্টের স্ক্রিন শট ছড়িয়ে পড়তেই কিরণ দত্তের অনুরাগীরা মৃণ্ময়ের স্ত্রী কে বাহবা দিতে থাকেন অন্যদিকে সিনেবাপের অনুরাগীরা নিজের স্বামীকে সাপোর্ট না করায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন।


কিন্তু বিষয়টি অন্যদিকে যেতে শুরু করায় ফের একবার মূখ খোলেন সিনেমা স্ত্রী রুমা মোদক। এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় দীর্ঘ পোস্টে নিজের স্বামীর পক্ষ নিয়েই তিনি লিখেছেন ‘আমার সাথে মৃন্ময়ের মাখো-মাখো প্রেম ব্যাপারটা কোনদিনই ছিল না। তাই ওকে নিয়ে প্রেমমাখা কোনো লাইন আমি লিখিনি কখনো। আমরা ফাজলামি মারতে মারতে একে-অপরের প্রেমে পড়ি। অতঃপর বিয়ে।”

নিন্দুকদের মুখে ঝামা ঘষে দেওয়ার পর রুমা লেখেন “নিজের বর তো প্রত্যেকের কাছেই স্পেশাল। আমার কাছে সবসময় ই ও বেস্ট,এগুলো কি মুখে বলার কথা ? এই মাথা গরম এর কারণে যাতে ক্ষতি না হয় সেই ভয় টাই আমার ছিল । ছেলে টা কিন্তু আস্তে আস্তে চেঞ্জ হচ্ছিল। একটা সাধারণ বিষয়, আমার সাধারণ একটা পোস্ট। যদিও সেটা বোঝার ক্ষমতা সকলের ছিল না। একটা সম্পর্ককে শেষ করে দিল।”

এরপরেই বরকে সাপোর্ট করে তিনি লিখেছেন “কীভাবে সাপোর্ট করতে হয় কেউ একটু বোঝাবে আমাকে প্লিজ। এই নো চাপ ওনলি সিনেবাপ ট্যাগলাইনটা আমার মাথাতেই আসছিলওটা লিখে দিলেই হয়তো সাপোর্ট করা হয়ে যেত।’ অন্যদিকে সিনেবাপ মৃণ্ময়ও ঝগড়ার ইঙ্গিত দিয়ে বলেছেন ” জোর করে কাওকে নিজের সাপোর্টার বানাবো না। নিজের বউকেও না। বাক স্বাধীনতা সকলের আছে তাই প্রাউডলি শেয়ার করলাম… আর আমাদের একসঙ্গে Vlog আর আসছে না।”

Related Articles

Back to top button