বিনোদনসিনেমা

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বন্ধুত্ব! সোশ্যাল মিডিয়া উত্তাল ‘বয়কট শাহরুখ খান’ দাবীতে

শাহরুখ খান (shah rukh khan), নামটাই যথেষ্ট বলিউডের বাদশাহকে চেনাতে। চোখে সুপারস্টার হবার হবার স্বপ্ন নিয়ে বড় হওয়া এক অতিসাধারণ পরিবারের ছেলে। অভিনয়কে ভালোবেসে মুম্বাইয়ের নানান প্রোডাকশন হাউসে ঘুরে বেড়ানো। তারপর ধীরে ধীরে ছবিতে অভিনয়ের সুযোগ পাওয়া থেকে শুরু করে দর্শকদের হৃদয়ে স্থান দখল। আজ জনপ্রিয়তার শিখরে রয়েছেন শাহরুখ খান। দেশ থেকে বিদেশ সর্বত্রই শাহরুখ ফ্যান রয়েছে।

দেখতে দেখতে জীবনের ৩০টা বছর কাটিয়ে ফেললেন শাহরুখ খান বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে। ১৯৯২ সালের ‘দিওয়ানা’ ছবি দিয়ে শুরু হয়েছিল পথ চলা। এপর্যন্ত কয়েকশো ছবি করে ফেলেছেন। যার মধ্যে বেশিরভাগই সুপারহিট। তাছাড়া এমন শতাধিক ছবি রয়েছে যেগুলো দর্শকদের মনে আলাদা জায়গা তৈরী করে এখনো গেঁথে রয়ে গিয়েছে।

তবে ‘জিরো’ (Zero) এর পর গত তিন বছর কোনো ছবি মুক্তি পায়নি শাহরুখের। এর জেরে অনুরাগীরা যেমন তার কামব্যাকের জন্য চাতকের মত অপেক্ষা করছে, তেমনই কারোর কারোর মতে আর নাকি কাজ পাননা শাহরুখ। শাহরুখকে নিয়ে চলা এই বিস্তর জল্পনার মাঝেই হঠাৎই বিপাকে পড়লেন অভিনেতা।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে শাহরুখের একটি ছবি হঠাৎ ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা দেখে রে রে করে ওঠে নেটিজেনরা। ট্যুইটারে বয়কট শাহরুখ খান ট্রেন্ড ও হয়৷ যদিও পাক প্রধানমন্ত্রীর সাথে শাহরুখ এর এই ছবি বহু পুরোনো, কিন্তু সেই ফটোর রেশ ধরেই বিজেপি নেতা তথা হরিয়ানার তথ্য-সম্প্রচার মন্ত্রকের ভারপ্রাপ্ত অরুণ যাদব শাহরুখ বয়কটের ডাক দেন নেটদুনিয়ায়।

পরে তিনি এই ট্যুইটটি ডিলিট করে দিলেও ততক্ষণে জল গড়িয়ে গিয়েছে অনেকদূর। এমনকি অনেকেই অভিনেতাকে দেশদ্রোহীর তকমা অব্দি দিয়েছেন। কেন ভারতের শত্রু পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অভিনেতা ছবি তুলেছেন সেই প্রশ্ন তুলেছেন নেটিজেনরা। এই ভাইরাল ছবির জেরে কটাক্ষের শিকার হতে হচ্ছে শাহরুখকে। পাশাপাশি এই ঘটনার জেরে অভিনেতার অনুরাগীরা অনেকেই তার পাশে দাঁড়িয়েছেন। ফ্যানপেজ থেকে শেয়ার হয়েছে অসংখ্য পোস্ট।

Related Articles

Back to top button