সিরিয়ালেও করোনার থাবা! খড়কুটোর মেজমার পর আক্রান্ত দেশের মাটির নোয়া


বাঙালি বাড়িতে সন্ধ্যার সন্ধ্যাপ্রদীপের সাথে সাথে শুরু হয় সিরিয়াল (Serial) পর্ব। সন্ধ্যা হলেই বাড়ির মেয়ে বউরা টিভির সামনে পছন্দের সিরিয়াল দেখার জন্য একত্রিত হন। সারাদিনের ব্যস্ততা আর কাজের ফাঁকে সিরিয়াল দেখেই বিনোদনের খিদে মেটান তাঁরা। সিরিয়াল না দেখলে যেন মন ভালো থাকে না কারোরই। কিন্তু এবার এই সিরিয়ালের অভিনেতা অভিনেত্রীদের ওপর থাবা বসাচ্ছে করোনা (Corona) মহামারী। একে একে সিরিয়ালের অভিনেত্রীদের শরীরে মিলছে করোনা ভাইরাস।

কিছুদিন আগেই করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন বাংলা সিরিয়ালের অভিনেতা ভরত কল (Bharat Ka)। ‘শ্রীময়ী’ থেকে ‘কোড়াপাখি’ এর মত সিরিয়ালে অভিনয় করতেন তিনি। গত ২রা এপ্রিল গন্ধ না পেতেই নিজেকে আইসোলেট করেন অভিনেতা। এরপর করোনা টেস্ট হলে জানা যায় করোনা পসিটিভ তিনি। ২রা এপ্রিল যে আউটডোরে শুটিং করছিলেন ভরত কল সেখানে উপস্থিত ছিলেন ‘দেশের মাটি’ সিরিয়ালের মূল চরিত্র নোয়ার অভিনেত্রী শ্রুতি দাস (Shruti Das)।

Shruti Das

শুটিং ফ্লোরে সমস্ত নিয়মবিধি মেনেই চলছিল কাজ! এমনকি সেদিন খুব বেশি অভিনয়ের কাজও ছিল না অভিনেত্রীর। মাস্ক পড়া থেকে সামাজিক দূরত্ব সমস্ত কিছুই পালন করছিলেন। তবে, সহ অভিনেতার করোনার উপসর্গ দেখে নিজের করোনা পরীক্ষা করার অভিনেত্রী। এদিন সেই রিপোর্ট জানান দেয় করোনা পসিটিভ শ্রুতি। এরপর থেকেই নিজেকে কোয়ারেন্টাইন করে ফেলেছেন অভিনেত্রী। চিকিৎসকদের পরামর্শ নিচ্ছেন, সাথে দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার চেষ্টা করছেন। এমন কঠিন সময় অভিনেত্রীর পাশে রয়েছেন প্রেমিক তথা পরিচালক স্বর্ণেন্দু সমাদ্দার। শ্রুতির দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন তিনি।

এদিকে শুধু যে শ্রুতি তা কিন্তু নয়। সিরিয়ালের আরেক অভিনেত্রীর শরীরেও মিলেছে করোনা ভাইরাস। খড়কুটো ও মোহর সিরিয়াল বর্তমানে বাঙালি দর্শকদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়। খড়কুটো সিরিয়ালে মেজমার চরিত্রে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী অনুশ্রী দাস (Anushree Das)। মার্চ মাসের শেষের দিকে গায়ে অসহ্য ব্যাথা শুরু হয় তাঁর, সাথে হালকা জ্বর। এরপর করোনা পরীক্ষা করা হয়, যার রিপোর্টে করোনা পসিজিভ জানতে পারেন অভিনেত্রী।

এরপর নিজেকে আইসোলেট করেছেন অভিনেত্রী। বর্তমানে বাড়িতেই আছেন অভিনেত্রী, নিয়মিত ডাক্তারের পরামর্শ নিচ্ছেন। আশা করা যাচ্ছে শীঘ্রই সুস্থ হয়ে যাবেন তিনি। অভিনেত্রীর মতে কাজের থেকে কিছুটা বিরতি পাওয়া গিয়েছে, তাই বাড়িতে বই পড়ে সময় কাটাচ্ছেন তিনি। তবে টলিপাড়ায় যে ফের করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে তা কিন্তু বেশ বোঝা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই রাজ্য তথা দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এসে গিয়েছে। তাই সাবধান থাকুন ও নিজেকে সুরক্ষিত রাখুন।