গসিপবিনোদনসিনেমা

ফুলশয‍্যার রাতেই ভেঙেছিল খাট! ছুপারুস্তম অভিষেকের জন্য ক্ষেপে উঠেছিলেন ঐশ্বর্য রাই

বলিউডের বিশ্ব সুন্দরী অভিনেত্রী ঐশ্বর্য রাই বচ্চন (Aishwarya Rai Bacchan)। তাঁর সৌন্দর্যের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ওল্ড জেনারেশন থেকে নিউ জেনারেশন সকলেই। অভিনেত্রী বিয়ে করেছেন বলিউডের বিগ বি অমিতাভ বচ্চননের ছেলে অভিষেক বচ্চনকে (Abhishek Bacchan)। বর্তমান সময়ে দাঁড়িয়ে যেখানে বিয়ে হওয়ার কয়েক মাস বা বছরের মধ্যেই শেষ হচ্ছে সম্পর্ক সেখানে সুখী দাম্পত্যের উদাহরণ অভিষেক ঐশ্বর্য। আজ ১৫ বছর পেরিয়ে গেলেও দিব্যি সুখী দাম্পত্য জীবন কাটাচ্ছেন দুজনেই।

তবে বলিউডের তারকাদের নিয়ে হামেশাই নেটিজনদের মনে নানা প্রশ্ন জাগতে থাকে। পর্দায় তারকাদের দেখার পর তাদের বাস্তব জীবন সম্পর্কে জানার আগ্রহ অনেকটাই বেড়ে যায়। প্রেম থেকে শুরু করে দাম্পত্য সবটাই যেন নেটিজনদের আতস কাঁচের তলায় দেখতে ভালো লাগে। জানলে অবাক হবেন অভিষেক ঐশ্বর্যর ফুলশয্যা নিয়েও বেশকিছু রটনা রয়েছে নেট মাধ্যমে। বিয়ের পর ফুলশয্যার রাতেই নাকি খাট ভেঙ্গে ফেলেছিলেন তাঁরা।

Abhishek Bacchan son of Amitabh Bacchan

শুধু তাই নয় ফুলশয্যার রাতে খাট ভাঙতেই বেজায় চটে গিয়েছিলেন ঐশ্বর্য। যার জেরে নববিবাহিত স্বামীকেই নাকি চড় মেরে ফেলেছিলেন অভিনেত্রী। তবে কি নেটিজেনরা যেমনটা মনে করছেন তেমনটাই ঘটেছিল? নাকি আসল সত্যিটা অন্য কিছু? আজ আপনাদের জন্য অভিষেক ঐশ্বর্যর ফুলশয্যার রাতের সেই ঘটনার আসল সত্যিটাই তুলে ধরব।

যেমনটা জানা যায়, ফুলশয্যার রাতে সদ্য বিয়ে করা বউ ঐশ্বর্যকে সারপ্রাইজ দিতে চেয়েছিলেন অমিতাভ পুত্র অভিষেক বচ্চন। আর সেই কারণে খাটের নাট আগে থেকেই ঢিলে করে রেখেছিলেন তিনি। যদিও উপর থেকে ফুলশয্যার জন্য সাজানো আর খাট যে আসলে ভাঙার দোরগোড়ায় এটা বোঝা অসম্ভব ছিল। তাই কিছুই বুঝতে পারেননি ঐশ্বর্য।

ঐশ্বর্য যখন রাতে খাটের উপর এসে বসেন, তখনই ভেঙ্গে পরে যায় খাট। যেটা দেখে খুব স্বাভাবিকভাবেই চমকে উঠেছিলেন ঐশ্বর্য। আর তাকে পরে যেতে দেখেই হেসে লুটোপুটি খান অভিষেক। এরপরেই অভিনেত্রী বুঝতে পারেন ইচ্ছা করেই এমনটা করা হয়েছিল। তাই রাগের বশে সেই অময় স্বামীর গালে চড় মেরে দিয়েছিলেন ঐশ্বর্য।

প্রসঙ্গত, অভিষেক ঐশ্বর্য ব্রটমানে দিব্যি সুখেই আছেন। মেয়ে আরাধ্যা ও জয়া অমিতাভ বচ্চনকে নিয়েই সুখী পরিবার তাদের। আর অভিষেক যে কতটা বুদ্ধিমান ও স্বামী হিসাবে পারফেক্ট সেটা বহুবারই শোনা গিয়েছে ঐশ্বর্যের মুখে।

Related Articles

Back to top button