গসিপবিনোদনসিনেমা

বন্ধুত্বের জন্যই বেঁচেছে প্রাণ, অমিতাভ বচ্চন না থাকলে আজ কোমায় থাকতেন ‘শোলে’ ছবির গব্বর সিং

বলিউডের বিগ বি অমিতাভ বচ্চনকে (Amitabh Bacchan) এক নামেই সকলে চেনেন। নিজের দীর্ঘ কেরিয়ারে একাধিক সুপারহিট ছবি উপহার দিয়েছেন অভিনেতা দর্শকদের। তবে কিছু ছবি এমন রয়েছে যা দাগ কেটে গিয়েছে, কয়েক দশক কেটে গেলেও সেই ছবির রেশ রয়েছে একই রকম। অমিতাভ বচ্চন অভিনীত এমনই একটি ছবি হল ‘শোলে (Sholay)’। ছবির অমিতাভ বচ্চন থেকে গব্বর সিং (Gabbaar Singh) আজ সকলের কাছে সমান জনপ্রিয়।

ছবিতে গব্বর সিং চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন বিখ্যাত অভিনেতা আমজাদ খান (Amjad Khan)। পর্দায় তাঁর ও অমিতাভ বচ্চনের লড়াই যেন আজও ভেসে বেড়ায় দর্শকদের চোখের সামনেই। সিনেমায় একেঅপরের শুত্রু হলেও বাস্তবে কিন্তু খুব ভালো বন্ধু ছিলেন দুজনেই। একসাথে ১৫টি ছবিতে কাজ করেছিলেন দুজনে। এমনকি বন্ধুত্বের খাতিরে আমজাদ খানের প্রাণ বাঁচিয়েছিলেন অমিতাভ বচ্চন।

গ্যামব্লারছবিতে একই সাথে কাজ করছিলেন দুই অভিনেতা। শুটিংয়ের জন্য বরাবরই অমিতাভ বচ্চনের আগে পৌঁছে যেতে আমজাদ খান। তবে একদিন ছবির শুটিংয়ের জন্য কোন কারনে ট্রেন বা ফ্লাইট কোনটাই ধরতে পারেননি আমজাদ খান। এরপর তিনি সিদ্ধান্ত নেন গাড়ি করেই শুটিং স্থানে পৌঁছবেন। অবশ্য অভিনেতা একা নয়, গাড়িতে তার সাথেই তার গোটা পরিবার ছিল। বেশ ভালোভাবেই গোয়া পর্যন্ত আস্থির সফল হয়েছিলেন অভিনেতা কিন্তু গোয়ার কিছু কিলোমিটার পরেই দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয় অভিনেতার গাড়ি।

অ্যাক্সিডেন্ট হওয়ার পর স্থানীয় লোকেরা অভিনেতা ও তার পরিবারকে গোয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরিবারের বাকি সদস্যদের অবস্থা ঠিক থাকলেও আমজাদ খানের ব্যাপক পরিমাণে রক্তক্ষরণ হয়েছিল। যে কারণে অভিনেতার ব্যাপক পরিমাণে রক্তের ঘাটতি হয়ে গিয়েছিল। এই খবর জানতে পেরেই অমিতাভ বচ্চন দৌড়ে হাজির হন গোয়ার হসপিটালে।

হাসপাতলে পৌঁছাতেই অমিতাভ বচ্চন জানতে পারেন পরিস্থিতি খুব একটা ভালো নয় পরিবারের বাকিরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় থেকে মুক্তি পেলেও আমজাদ খানের অবস্থা খারাপের দিকে। এমন সময় হাসপাতালের কাগজে সই পর্যন্ত করতে রাজি ছিলেন না কেউ, তখন আমিতাভ বচ্চন বন্ধু হিসেবে সেই কাগজে সই করেন এবং চিকিৎসকের থেকে জানতে পারেন তার বন্ধুর ব্যাপক পরিমাণে রক্তক্ষরণ হয়েছে। এরপর কঠিন সময় ভগবানের পাঠানো দ্যুতের মত বন্ধুকে রক্ত দিয়ে প্রাণে বাঁচান আমিতাভ বচ্চন।

এই গোটা ঘটনার কথা একসময় আন্নু কাপুর রেডিওতে খোলসা করেছিলেন। সাথে তিনি জানিয়েছিলেন আমজাদ খান কি যদি তৎক্ষণাৎ প্রয়োজনমতো রক্ত না দেওয়া হতো তাহলে হয়তো কোমায় চলে যেতে পারতেন তিনি। এমনকি তার প্রাণ সংশয় পর্যন্ত হতে পারত। তবে একজন আদর্শ বন্ধুর দায়িত্ব পালন করে আমজাদ খান খেয়েছে দিন প্রাণী বাঁচিয়েছিলেন বিগ বি।

Related Articles

Back to top button