বিনোদন

আবারও শিরোনামে কঙ্গনা, প্রতারণা ও তথ্যস্বত্ত্ব চুরির অভিযোগে মামলা দায়ের অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে

বলি-অভিনেতা (Bollywood) সুশান্ত সিং রাজপুতের (Sushant Singh Rajput) মৃত্যুর সময় থেকেই নেট-দুনিয়ায় (Internet) রাতারাতি স্পটলাইট পেয়ে যান অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত (Kangana Ranaut)। যদিও তারপর থেকেই নানাভাবে ট্রোলের সম্মুখীন হয়েছেন ‘ক্যুইন’। সাম্প্রতিক একটি ঘটনাতেও ভয়ানকভাবে ফেঁসে গেছেন কঙ্গনা। ঘটনাচক্রে খর পুলিশকে অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ নথিবদ্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে মুম্বই জেলা আদালত।

সূত্রের খবর, প্রতারণা ও তথ্যস্বত্ত্ব চুরির অভিযোগে আনা হয়েছে বলি-অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে। শুক্রবার খর পুলিশকে কঙ্গনা রানাওয়াত, তাঁর বোন রাঙ্গলি চান্দেল (Rangoli Chandel), তাঁর ভাই অক্ষত রানাওয়াত (Akshat Ranaut) ও কমল কুমার জৈনের বিরুদ্ধে মামলা লিপিবদ্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে মুম্বই দায়রা আদালত। জানা গেছে, সম্প্রতি কাশ্মীরের (Kashmir) এক যোদ্ধা রাণী ‘দিদ্দা’-র (Didda) উপর একটি ছবির ঘোষণা করেছিলেন কঙ্গনা। যদিও ‘দিদ্দা : দ্য ওয়ারিয়র ক্যুইন অফ কাশ্মীর’ (Didda : The Warrior Queen of India) শীর্ষক বইটির লেখক আশীষ কৌলের (Ashish Kaul) মতে, “আমার সংগ্রহ করা তথ্য আমাকে না জানিয়েই সিনেমায় ব্যবহার করা হচ্ছে। এতে আমার তথ্যস্বত্ত্ব লঙ্ঘিত হয়েছে।”

ভারতের আঞ্চলিক ইতিহাস বলছে, কাশ্মীরের রাণী দিদ্দা আদতে লোহার বা পুঁচ (Lohar) (Poonch) অঞ্চলের কর্ত্রী ছিলেন। ঘটনাসূত্রে সেই রাণীরই একজন বংশধর এই আশীষ কৌল। আশীষের মতে, তাঁর বই ছাড়া সারা বিশ্বের মধ্যে ‘রাজতরঙ্গিনী’ (Rajatarangini) এমন আর একটিমাত্র বই, যেখানে রাণী দিদ্দার উল্লেখ রয়েছে! কৌলের মতে, “১২ খ্রিস্টাব্দে কাশ্মীরি ঐতিহাসিক কলহনের সংস্কৃতে লেখা বইয়ের মাত্র দুইটি পাতায় দিদ্দার সম্পর্কে বর্ণনা রয়েছে।” আশীষের মতে, ইতিপূর্বে নাকি কঙ্গনাকে ইমেইল (Email) মাধ্যমে তাঁর রচনার বেশ কিছু অংশ পাঠিয়েছিলেন তিনি। যদিও আশীষের বই থেকে তথ্য ‘চুরি’ করার বিষয়ে সাফ না করেছেন কঙ্গনা।

সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারে আশীষ কৌলের বক্তব্য, “কঙ্গনা এমন কাজ করলে আমার মারাত্মক ক্ষতি হয়ে যাবে। আমার গল্পের বিষয়ে ইতিমধ্যে বেশ বড় প্রযোজকদের সাথে কথা হয়েছে এবং ২০১৭ সাল থেকে সেই চুক্তি স্বাক্ষরিত রয়েছে।” যদিও ‘মণিকর্নিকা রিটার্নস : দ্য লেজেন্ড অফ দিদ্দা’ (Manikarnika Returns : The Legend of Didda) নামক আগামী ছবির বাজেটের বিষয়ে মুখ খুলেছেন ছবির নির্মাতারা। বাজেটের দিক থেকে যে এই ছবি আন্তর্জাতিক মানের হবে, তার ইঙ্গিত মিলেছে এখনই। যদিও রুজু হওয়া মামলায় কোন পক্ষের পক্ষে যাবে রায়, তা বলা যে এখনই মুশকিল, তা স্বীকার করে নিয়েছেন বলিমহলের একাংশ!

Related Articles

Back to top button