শুভ বিজয়া পোস্ট করতেই মৌলবাদীদের তীব্র কটাক্ষের শিকার তৃণমূল সাংসদ নুসরত জাহান

নুসরত জাহান, বাঙালি এই অভিনেত্রী অভিনয় জগতের সাথে রাজনীতিতেও নিজের নাম তুলেছেন। বর্তমানে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি একজন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ। অভিনেত্রী সর্বদাই নিজের সাহসের পরিচয় দিয়েছেন তার আচার আচরণ ও কথাবার্তার মধ্যে দিয়ে। সাথে অভিনেত্রীর বাঙালি পোশাকের প্রতিও টান আছে যথেষ্ট। যার ফলে অভিনেত্রীকে অনেক সময় শাড়ি পরে দেখা যায়। যদিও অভিনেত্রী ইসলাম ধর্মাবলম্বী তবে তিনি জাতপাত বিভেদে বিশ্বাসী নন।

এর জন্য বহুবার তাকে কটাক্ষের শিকার হতে হয়েছে। দুর্গাপুজোয় সিঁদুর খেলা থেকে আরম্ভ করে রথের দড়ি টানা নিয়ে অনেক ধর্ম অধর্মের কথা শুনতে হয়েছে অভিনেত্রীকে নানা সময়ে। যদিও সেই সমস্ত কোথায় অভিনেত্রী তেমন গা করেননি। তিনি নিজের মতোই স্বাচ্ছন্দ্যে রয়েছেন। অভিনেত্রী নিজের সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ সক্রিয় তা সে নিজের কাজ হোক বা ফটোশুট শেয়ার করেন ভক্তদের সাথে।

এবার পুজোয় বিজয়া দশমীতে অভিনেত্রী নিজের সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ছবি দিয়েছেন। যেখানে একেবারে বাঙালি বেশে হাতে প্রদীপ  নিয়ে দেখা যাচ্ছে অভিনেত্রীকে। ছবিটির পেছনে রয়েছে মা দুর্গার মূর্তি, সাথে অভিনেত্রী ছবিটি শেয়ার করে লিখেছেন “শুভ বিজয়া”। আর এতেই শুরু হয়েছে সমালোচনার ঝড়। নুসরতের ছবিটি শেয়ার করার পর ইতিমধ্যেই তা ৫২ হাজারেরও বেশি মানুষ দেখেছেন, তাদের মধ্যে ৪ হাজারেরও বেশি মানুষ নিজেদের প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন ছবিটি দেখে।

 

 

ছবিটির কারণে অভিনেত্রীকে মৌলবাদীদের তীব্র কটাক্ষের মুখে পড়তে হয়েছে। কেউ বলেছেন “আপনি কোন ধর্ম পালন করবেন সেটা আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপার, তবে আপনি কোন ধর্মের অনুসারী সেটা আগে স্পষ্ট করুন। একই সাথে দুই নৌকায় পা রাখবেন না”।তো কেউ বলেছেন অভিনেত্রীর নিউজের নাম পরিবর্তন করা উচিত, তার  জন্য পুরো ইসলামের অসম্মান হচ্ছে। একজন নেটিজন মন্তব্য করেন,”বলতে চেয়েছিলাম অনেক কিছু কিন্তু বললাম না কারণ বললে তথ্য ওপ্রযুক্তি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হবে”। এক নেটিজেন মন্তব্য করে বলেছেন, “আল্লাহ ছাড় দেন, ছেড়ে দেননা ইটা সবাইকে মাথায় রাখতে হবে “।