বিনোদনভিডিও

‘যতই ঘুড়ি ওড়াও রাতে, লাটাই তো আমার হাতে’, ওহ লাভলি! দিদি নং ১এ সস্ত্রীক মদন মিত্রের রসিকতা

এমনিতে বিনোদন জগতের সাথে রাজনীতির সম্পর্ক বহুদিনের। আর এবার ফের এক অসাধ্যসাধন করে দেখালেন বাংলার দিদি নম্বর ওয়ান রচনা ব্যান্দোপাধ্যায় (Rachna Banerjee)। বাংলা টেলিভিশনের ইতিহাসে এই প্রথমবার জনপ্রিয় রিয়ালিটি গেম শো ‘দিদি নম্বর ওয়ান’-এর মঞ্চে হাজির হতে চলেছেন রাজ্য রাজনীতির সবচেয়ে ‘কালারফুল’ ব্যাক্তিত্ব মদন মিত্র(Madan Mitra)।

তাও আবার একা নয়, সাথে থাকবেন তার সুন্দরী স্ত্রী অর্চনা মিত্রও। এতদিন মদন মিত্র লাইভে আসলেই তার পাশে লেগে থাকতো সুন্দরী দের ভীড়। আর গতকাল রাতেও সকলের প্রিয় মদন দা লাইভে আসতেই প্রথমে তার পাশে দেখা যায় বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তথ্য সঞ্চালিকা রচনা ব্যানার্জীকে। এদিন তার ডাকেই প্রথমবার স্ত্রী কে সাথে নিয়ে দিদি নাম্বার ওয়ানের মঞ্চে দেখা গেল মদন মিত্র কে।


শীতের আমেজের সাথে সাথে এগিয়ে আসছে বর্ষ বরণের সময়। তাই সকলের মতোই দিদি নাম্বার ওয়ানেও চলছে জমজমাট পিকনিক স্পেশাল পর্ব। এই পর্বে এবার রচনা বন্দোপাধ্যায়ের ডাক পেয়ে উচ্ছসিত মদন মিত্র। তবে খানিকটা অভিমান করেই মিষ্টি অনুযোগের সুরে তিনি বলেন , ‘অপেক্ষায় ছিলাম, কবে রচনার শো-তে ডাক পাব! অভিমানও হত, রাজনীতি করি বলেই কি আমাদের ডাকেন না রচনা? আজ আর আমার কোনও অভিমান নেই!’

রসিকতায় কম যান না মদন মিত্রের স্ত্রী অর্চনাও । তাকে সঞ্চালিকা রচনা মজা করেই প্রশ্ন করেন, ‘দাদার চারপাশে এত সুন্দরীদের ভিড়। আপনি কখনও থাকেন না। ভয় হয় না?’’ উত্তরে অর্চনার সটান জবাব, ‘ঘুড়ি যতই উড়ুক, লাটাই তো আমার হাতে!’ সঙ্গে সঙ্গে বাংলা রাজনীতির কালারফুল বিধায়কের মুখে শোনা যায় সেই বিখ্যাত সংলাপ, ‘ওহ! লাভলি…।’


উল্লেখ্য মদন মিত্র ছাড়াও এই পর্বে থাকবেন সদ্য তৃণমূলে যোগ দেওয়া বাবুল সুপ্রিয়ও। সঞ্চালিকা রচনার প্রশংসায় রসিকতা করে তিনি বলেন ‘এত সুন্দরী নায়িকা। আমি রচনার অন্যতম গুণমুগ্ধ। ওই জন্যেই রচনা নামের মেয়েকেই বিয়ে করেছি!’ এই দুই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের পাশাপাশি এই পর্বে থাকবেন সস্ত্রীক শিবাজি চট্টোপাধ্যায় এবং রাঘব চট্টোপাধ্যায়, উপস্থিত ছিলেন নচিকেতাও। আগামী ২১শে ডিসেম্বর টিভির পর্দায় দেখা যাবে এই বিশেষ পর্ব।

Related Articles

Back to top button